শয্যার অভাব, রোগীদের ঠাঁই মেঝেতে

482

চ্যাংরাবান্ধা, ১০ অগাস্টঃ হাসপাতালে শয্যার সংখ্যা মাত্র ১০টি। কিন্তু প্রায়ই হাসপাতালে রোগী ভরতি থাকেন ৪০ জনেরও বেশি। এমনটাই অবস্থা মেখলিগঞ্জ ব্লকের চ্যাংরাবান্ধা ব্লক প্রাথমিক স্বাস্থ্যকেন্দ্রের। বাধ্য হয়েই তাই রোগীদের ঠাঁই হচ্ছে হাসপাতালের মেঝেতে। গত কয়েকদিনে অবস্থার আরও অবনতি হয়েছে। অর্থাৎ বর্তমানে ব্যাপকহারে জ্বরের রোগী হাসপাতালে আসছেন। যাঁদের অনেককেই হাসপাতালে ভরতি করাতে হচ্ছে। মাঝে রোগীদের ভিড় এতটাই বেড়ে যাচ্ছে যে তাঁদের হাসপাতালের বাইরের সিঁড়িতেও থাকতে হচ্ছে। প্রচন্ড গরমে লোডশেডিং হলে রোগীদের গাছ তলায় নিয়ে আসা হয়। সবমিলিয়ে বেহাল অবস্থা চ্যাংরাবান্ধা ব্লক প্রাথমিক স্বাস্থ্যকেন্দ্রটির। এই ব্লক প্রাথমিক স্বাস্থ্যকেন্দ্রকে গ্রামীণ হাসপাতালে উন্নীত করার বিষয়ে অনেকদিন থেকে বিভিন্ন মহল থেকে আশ্বাস দিলেও কাজের কাজ কিছুই হচ্ছে না বলে মনে করছেন স্থানীয়রা। তাঁদের অভিযোগ, বাংলাদেশ সীমান্তবর্তী এই এলাকায় নামে মাত্রই একটি ব্লক প্রাথমিক স্বাস্থ্যকেন্দ্র রয়েছে। চিকিৎসক, নার্স সব কিছুরই অভাব রয়েছে।

স্বাস্থ্যকেন্দ্রের বেহাল অবস্থা প্রসঙ্গে চ্যাংরাবান্ধা উন্নয়ন পর্ষদের চেয়ারম্যান তথা হাসপাতালের রোগী কল্যাণ সমিতির চেয়ারম্যান পরেশচন্দ্র অধিকারি বলেন, ‘১০ শয্যা বিশিষ্ট এই ব্লক স্বাস্থ্যকেন্দ্রে শয্যা সংখ্যা বাড়িয়ে ৩০ করার জন্য একটা পরিকল্পনা তৈরি করে রাজ্য সরকারের কাছে পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে। সেখান থেকে অনুমোদন এলেই কাজ শুরু হবে।’

- Advertisement -