তুফানগঞ্জ, ২৩ নভেম্বরঃ তুফানগঞ্জ-২ ব্লকের মহিষকুচি-১ ও বারকোদালি-২ গ্রাম পঞ্চায়েতের বোর্ড গঠনকে কেন্দ্র করে রণক্ষেত্রের চেহারা নিল বক্সিরহাট। গ্রাম পঞ্চায়েত দুটির ক্ষমতা নিজেদের দখলে রাখতে আগে থেকেই প্রস্তুত ছিল বিজেপি ও তৃণমূল। বোর্ড গঠন চলাকালীন এবং শেষে দু’পক্ষের মধ্যে চলে পাথর বৃষ্টি। দফায় দফায় সংঘর্ষ বাধে বক্সিরহাটের বিডিও অফিস এলাকায়। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশ লাঠিচার্জ করে বলে অভিযোগ।

তৃণমূল নেতা সুরেশচন্দ্র বর্মন বলেন, ‘আমরা শান্তিপূর্ণভাবেই বোর্ড গঠনের বিষয়ে প্রশাসনকে সহযোগিতা করেছি। আমাদের তরফে কাউকে পাথর ছোড়া হয়নি। বরং বিজেপি বোর্ড গঠনের প্রক্রিয়া বানচালের চেষ্টা করেছিল। তীর ধনুক, কাটা পাথর নিয়ে এসেছিল তারা।’ যদিও বিজেপির তুফানগঞ্জ বিধানসভা কেন্দ্র সংযোজক উৎপল দাসের অভিযোগ, ‘গ্রাম পঞ্চায়েতের বোর্ড দখল করতে তৃণমূল আগ্নেয়াস্ত্র সমেত বহিরাগতদের জমায়েত করেছিল বিডিও অফিস চত্বরে। তারাই গোলমাল পাকানোর চেষ্টা করেছে। নিরীহ বিজেপি কর্মীদের ওপর পাথর ছুড়েছে।’ পুলিশের আশ্রয় নিয়ে তারা এসব করেছে বলে উৎপলবাবুর অভিযোগ। এদিকে ঘটনায় বেশ কয়েকজন আহত হয়েছে বলে জানা গিয়েছে।

তুফানগঞ্জ-২ ব্লকের বিডিও ভগিরথ হালদার জানান, ১৩ আসন বিশিষ্ট বারকোদালি-২ গ্রাম পঞ্চায়েতের বোর্ড গঠন চলাকালীন ১০ জন গ্রাম পঞ্চায়েত সদস্য উপস্থিত ছিলেন। সুমন বর্মন প্রধান মনোনীত হয়েছেন। সন্তোষ পাল উপপ্রধান হয়েছেন। ১০ আসন বিশিষ্ট মহিষকুচি-১ গ্রাম পঞ্চায়েতের বোর্ড গঠনের সময় ৯ জন গ্রাম পঞ্চায়েত সদস্য উপস্থিত ছিলেন। প্রধান ও উপপ্রধান রয়েছেন যথাক্রমে মীনাক্ষী সরকার বর্মন ও সঞ্জীব অধিকারী।