ছটপুজোর পর এখনও ঘাট সাফাই হয়নি তোর্ষায়

334

দেবদর্শন চন্দ, কোচবিহার : ছটপুজোর শেষে আবর্জনায় ঢেকে গেল তোর্ষা নদীর বিভিন্ন ঘাট। পুজোর পরদিনও প্রতিটি ঘাটে বিভিন্ন সামগ্রী ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকতে দেখা গিয়েছে। কোথাও পড়ে রয়েছে পুজোর ফুল, কোথাও কলা গাছ, আবার কোথাও জরি বা রঙিন কাগজ পড়ে রয়েছে। অনেক জায়গায় আতশবাজির প্যাকেট পড়ে থাকতে দেখা গিয়েছে। ফুল, কলা গাছ, এমনকি প্লাস্টিকের প্যাকেটও নদীতে ভেসে চলেছে। কিছু কিছু জায়গায় থার্মোকলের বাটি এবং প্লাস্টিকের গ্লাসও পড়ে থাকতে দেখা গিয়েছে। এই পরিস্থিতি নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন শহরবাসী থেকে শুরু করে পরিবেশপ্রেমীরা। পুরসভার ভমিকা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন তাঁরা।

কোচবিহারে মূলত তোর্ষা নদীকে কেন্দ্র করে প্রতি বছর ছটপুজো হয়। অনেক মানুষ সেই পুজোয় অংশ নেন। তোর্ষার পাশাপাশি কোচবিহারের সাগরদিঘি সহ মরাতোর্ষার তীরেও বহু মানুষ পুজো করেন। প্রশাসনের তরফে ছটপুজো উপলক্ষ্যে বিভিন্ন ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছিল। কিন্তু ছটপুজোর পর ঘাটের বেশিরভাগ জায়গা আবর্জনায় ভরে গিয়েছে। পুজোর একদিন পরেও তোর্ষায় আবর্জনা ভেসে যাওয়ায় ক্ষুব্ধ শহরের বাসিন্দারা। তাঁদের অভিযোগ, এর ফলে একদিকে য়েরকম জল দূষণ হচ্ছে, তেমন জলজ প্রাণীদেরও ক্ষতি হচ্ছে। এছাড়াও দৃশ্য দূষণ ঘটছে বলে অভিযোগ করেন তাঁরা। এসবের জন্য পুরসভার নজরদারির অভাবকে তাঁরা দাযী করেছেন। তাঁরা আরও জানিয়েছেন, প্রশাসনের তরফে সচেতনতামূলক প্রচার চালানো হলেও অনেকেরই এ বিষয়ে ভ্রূক্ষেপ নেই। পুজো উদ্যোক্তাদেরও এ বিষয়ে সচেতন হওয়া জরুরি।

- Advertisement -

এ বিষয়ে পরিবেশপ্রেমী সংগঠন ন্যাস গ্রুপের সম্পাদক অরূপ গুহ বলেন, মানুষের কল্যাণে পুজো করা হয় ঠিকই, পাশাপাশি দেখতে হবে যাতে নদী বা দিঘির বাস্তুতন্ত্রের ক্ষতি না হয়। নদী দূষণ এড়াতে সকলকেই সচেতন হওয়া জরুরি। পাশাপাশি রাজনৈতিক নেতারা য়দি এ বিষয়ে নজর দেন তাহলে ভালো হয়। কোচবিহার মাউন্টেনিয়ার্স ক্লাবের সহসভাপতি দিলীপচন্দ্র চৌধুরি বলেন, দূষণ নিয়ন্ত্রণ করতে পুজোর আগেই আযোজকদের সঙ্গে পুরসভার বৈঠক করা দরকার। ছটের পর ঘাটগুলি যে অবস্থায় রয়েছে, সেরকম য়াতে আর না হয়, সেদিকে পুরসভাকে নজর রাখতে হবে। নদী দূষণ রুখতে সকলকেই সচেতন হওয়া জরুরি।

এ বিষয়ে কোচবিহার পুরসভার চেয়ারম্যান ভূষণ সিং বলেন, মানুষের সচেতনতার অভাবই দূষণের জন্য দাযী। প্লাস্টিক ব্যবহার নিষিদ্ধ হওয়া সত্ত্বেও অনেকেই প্লাস্টিক ব্যবহার করছেন। এছাড়াও, ঘাট পরিষ্কার করতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। শীঘ্র আবর্জনা পরিষ্কার করে ফেলা হবে।