স্বাস্থ্যবিধি মেনে ছট পুজোর প্রস্তুতি শুরু গঙ্গারামপুরে

201

রাজু হালদার, গঙ্গারামপুর: করোনা সংক্রমণের কারণে এবছর সরকার নির্ধারিত স্বাস্থ্যবিধি মেনে ছট পুজোর প্রস্তুতি শুরু করেছে গঙ্গারামপুর আশ্রমঘাট ছট পুজো কমিটি। পরিবেশ আদালতের নিয়ম মেনে আতশবাজি ও শব্দবাজি ছাড়া এবছর ছট পুজোর প্রস্তুতি শুরু করেছেন উদ্যোক্তারা। এর পাশাপাশি পুনর্ভবা নদী সংলগ্ন ছট পুজোর ঘাট সোমবার পরিদর্শন করলেন গঙ্গারামপুর প্রশাসক মন্ডলীর সদস্য।

এদিন গঙ্গারামপুর পুরসভার সাত নম্বর ওয়ার্ডের পুনর্ভবা নদী সংলগ্ন আশ্রম ঘাট ও ফেরিঘাটে ছট পুজোর প্রস্তুতি খতিয়ে দেখেন গঙ্গারামপুর পুরসভার প্রাক্তন উপ-পুরপ্রধান তথা গঙ্গারামপুর পুরসভার প্রশাসক মন্ডলীর সদস্য রাকেশ পণ্ডিত। ছট পুজোর ঘাট খতিয়ে দেখে সরকারি নিরাপত্তা ব্যবস্থা সহ অন্যান্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থার আশ্বাস দেন তিনি।

- Advertisement -

গঙ্গারামপুর পুর প্রশাসক মন্ডলীর সদস্য রাকেশ পণ্ডিত বলেন, ‘এদিন গঙ্গারামপুর পুরসভার তরফে গঙ্গারামপুর পুরসভার বিভিন্ন ছট পুজো ঘাট পরিদর্শন করলাম। মূলত করোনা সংক্রমণের জেরে এবছর সরকার নির্ধারিত স্বাস্থ্যবিধি মেনে যাতে ছট পুজোর আয়োজন করা হয়, সে বিষয়ে পুজো উদ্যোক্তাদের জানালাম। এর পাশাপাশি প্রত্যেক ভক্তরা যাতে করোনা স্বাস্থ্যবিধি মেনে ছট পুজাতে অংশগ্রহণ করেন, সে বিষয়ে সচেতন করার জন্য পুজো উদ্যোক্তাদের সঙ্গে কথা বললাম।’ রাকেশবাবু আরও বলেন, ‘প্রতিবছরের মতো এবছরও ছট পুজোর আয়োজনকে ঘিরে কড়া পুলিশি নিরাপত্তার ব্যবস্থা করা হয়েছে। সেই সঙ্গে কোনও পুণ্যার্থী যাতে নদীর জলে ডুবে না যান, তার জন্য আলাদাভাবে নজরদারি চালানো হবে। এর পাশাপাশি বড়সড় বিপত্তি এড়াতে নদীর ঘাটে বিপর্যয় মোকাবিলা দপ্তরের কর্মী, ডুবুরি, অ্যাম্বুলেন্সের ব্যবস্থা করা হবে। আশাকরি প্রতিবছরের মতো এবছরও নির্বিঘ্নে এবং অত্যন্ত শান্তিপূর্ণভাবেই ছট পুজো অনুষ্ঠিত হবে।’

গঙ্গারামপুর শহর সংলগ্ন সাত নম্বর ওয়ার্ডের বড় বাজার এলাকায় অবাঙালি হিন্দু সম্প্রদায়ের মানুষের বসবাস। প্রতিবছর এই এলাকার মানুষরা পুনর্ভবা নদী সংলগ্ন ঘাটে মহাসমারোহে ছট পুজোর আয়োজন করেন। প্রতিবছর বাহারি আতশবাজি এবং সুদৃশ্য আলোকসজ্জা ছট পুজোর ঘাটে বাড়তি আকর্ষণের মাত্রা যোগ করে। ফিবছর এই পুজোয় অবাঙালি-বাঙালি অগণিত মানুষ অংশগ্রহণ করেন। বাড়তি আকর্ষণ হিসেবে বিহার সহ বিভিন্ন রাজ্যের নামী ভজন শিল্পীরা এই পুজোতে অংশগ্রহণ করেন। রাতভর আতশবাজির রোশনাইয়ে এবং ভজন শিল্পীদের অনবদ্য সংগীত পরিবেশনের মাধ্যমে ছট পুজো মহা সমারোহে উদযাপিত হয়ে থাকে।

তবে এবছর করোনা সংক্রমণের কারণে বিগত দিনের ছট পুজোর সেই চেনা চিত্রের বদল ঘটতে চলেছে। কার্যত করোনা সংক্রমণের কারণে এবছর আশ্রম ঘাট ছট পুজো কমিটি নম নম করে নিয়ম রক্ষার পুজোর আয়োজন করতে চলেছে। সেইমতো এবছর পুজো কমিটির তরফে নির্দিষ্ট সামাজিক দূরত্ববিধি মেনে ছট পুজোর ঘাট তৈরি করার উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে। এর পাশাপাশি অত্যাধিক ভিড় এড়াতে আতশবাজি ও ভজন এবছর বাতিল করা হয়েছে। সেই সঙ্গে মূর্তি ছাড়া পুজো করার উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে। ইতিমধ্যে পুজো কমিটির উদ্যোগে পুনর্ভবা নদীতে ছট পুজোর ঘাট বাঁধানোর কাজ চলছে। সেইসঙ্গে জোরকদমে চলছে পুজোর প্রস্তুতি।

এই প্রসঙ্গে আশ্রম ঘাট ছট পুজো কমিটির অন্যতম সদস্য সুরেশ জয়সওয়াল জানান, ‘গঙ্গারামপুর পুরসভার সাত নম্বর ওয়ার্ডের পুনর্ভবা নদী সংলগ্ন আশ্রম ঘাটে প্রতিবছর মহাসমারোহে ছট পুজো উদযাপন করা হয়। এই ছট পুজোয় স্থানীয় বাঙালি-অবাঙালি বহু মানুষ অংশগ্রহণ করেন। রাতভর বাহারি আতশবাজি পোড়ানো হয় এবং বিভিন্ন রাজ্যের ভজন শিল্পীদের নিয়ে একটি বড় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। তবে এবছর করোনা সংক্রমণের জন্য জৌলুসহীন শুধুমাত্র নিয়ম রক্ষার ছট পুজোর আয়োজন করা হয়েছে।’ সুরেশবাবু আরও জানান, এবছরের পুজোয় সামাজিক দূরত্ব মেনে ছট পুজোর ঘাট তৈরি করা হচ্ছে। এর পাশাপাশি সম্পূর্ণভাবে আতশবাজি নিষিদ্ধ করা হয়েছে। অতিরিক্ত ভিড় এড়াতে এবং সংক্রমণ রুখতে এবছর মূর্তি ছাড়াই নিয়ম রক্ষার পুজোর আয়োজন করা হয়েছে।