তৃণমূলের আঞ্চলিক কর্মীসম্মেলনে অনুপস্থিত প্রধান-উপপ্রধান, প্রকাশ্যে গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব

190

দীপঙ্কর মিত্র, রায়গঞ্জ: তৃণমূল কংগ্রেসের ৯ নম্বর গৌরি অঞ্চল কমিটির কর্মী সম্মেলনে গেলেন না অঞ্চল প্রধান, উপপ্রধান সহ গ্রাম পঞ্চায়েতের অধিকাংশ সদস্য এবং দলের পঞ্চায়েত সমিতির সদস্য। অথচ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন জেলা তৃণমূল সভাপতি কানাইয়া লাল আগরওয়াল, রায়গঞ্জ বিধানসভার কো-অর্ডিনেটর অরিন্দম সরকার, ব্লক সভাপতি মানস ঘোষ সহ অন্যান্যরা। নির্বাচনের আগে অঞ্চলে দলের ভিত মজবুত করার ডাক দেওয়া হলেও গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব চরম আকার নেওয়ায় চিন্তার ভাঁজ পড়েছে নেতৃত্বের কপালে।

গ্রাম পঞ্চায়েতের উপপ্রধান তৈয়ব আলি বলেন, অঞ্চল কমিটি গঠনের ক্ষেত্রে আমাদের কোনও মতামত নেওয়া হয়নি। আমাদের সঙ্গে ব্লক ও অঞ্চল নেতৃত্বের কোনও যোগাযোগ নেই। গ্রামে ত্রাণ বিলি হয়েছে আমাদের বাদ দিয়েই। এমন কী সম্মেলনের পোস্টারে প্রাক্তন প্রধানদের নাম থাকলেও নাম ছিল না বর্তমান প্রধানের। তাই আমরা এই নেতৃত্বের সঙ্গে নেই।

- Advertisement -

তৃণমূল কংগ্রেসের রায়গঞ্জ পঞ্চায়েত সমিতির সদস্য রেজাউল হক বলেন, দুর্নীতিগ্রস্ত ব্লক কমিটির সঙ্গে আমরা নেই। দুর্নীতিগ্রস্তদের সঙ্গে সভায় বসতে পারব না। তাই আমরা সম্মেলনে যাইনি। তবে আমরা দলের সঙ্গে আছি।

এদিনের কর্মী সম্মেলনে গ্রাম পঞ্চায়েতের ১৪ জন তৃণমূল সদস্য উপস্থিত থাকেনি বলেনি দাবি বিক্ষুব্ধ নেতৃত্বের। যদিও এদিন প্রায় পাঁচ হাজার লোকের জমায়েতে কর্মীসম্মেলন করা হয়েছে বলে দাবি নেতৃত্বের। তারা বলেন, যারা মস্তানি করে পঞ্চায়েত দখল করে আছে তাদের প্রতি সাধারণ মানুষ বীতশ্রদ্ধ। তাই এত বড় জমায়েত আজ।

এদিকে, নির্বাচনের আগে যখন প্রতিটি অঞ্চলে দলের কর্মীদের মধ্যে ঐক্যের বার্তা ছড়িয়ে দিতে তৃণমূল নেতৃত্ব আপ্রাণ চেষ্টা চালাচ্ছেন, সেইসময় এই অঞ্চলে একটা অংশের কর্মীদের মধ্যে ক্ষোভ তৈরি হওয়ায় বিরোধীদের শক্তি অনেকটাই মজবুত হচ্ছে বলে মনে করছে রাজনৈতিক মহল।

তৃণমূল কংগ্রেসের রায়গঞ্জ বিধানসভার কো-অর্ডিনেটর অরিন্দম সরকার বলেন, সাধারণ মানুষ যাদের প্রতি অভিযোগ, যারা পঞ্চায়েতে ক্ষমতায় থেকেও কোনোও কাজ করছে না। তাদের সঙ্গে দলের কোনও সম্পর্ক নেই। যেভাবে এরা ক্ষমতায় এসেছে সেটা এলাকার মানুষ মেনে নিতে পারছে না। যে রেজাউল এত কথা বলছে তার বিরুদ্ধে একাধিক অভিযোগ এলাকার মানুষের। তাই তাকে বহিস্কার করা হয়েছিল। দল তাকে সংশোধনের সুযোগ দিয়েছিল। কিন্ত এখন সে আবার দল বিরোধী কাজ করছে। পঞ্চায়েতকে কুক্ষিগত করে রাখার চেষ্টা করছে। তিনি বলেন, ওদের প্রতি মানুষ যে বীতশ্রদ্ধ আজকের জমায়েত তা প্রমাণ করেছে। মানুষের কাছে আমরা গিয়ে ভুল ত্রুটির জন্য ক্ষমা চাইছি। আগামী নির্বাচনে আমরা এই অঞ্চলে খুব ভালো করব।