জখম জাকির হোসেনকে দেখতে হাসপাতালে মুখ্যমন্ত্রী

102

কলকাতা: বোমার আঘাতে জখম শ্রম দপ্তরের প্রতিমন্ত্রী জাকির হোসেনকে দেখতে আজ বৃহস্পতিবার এসএসকেএম হাসপাতালে যান মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। দেখা করেন মন্ত্রীর সঙ্গে। চিকিৎসকদের সঙ্গে কথা বলে তার শারীরিক অবস্থার খোঁজ নেন তিনি। পরে সংবাদমাধ্যমের মুখোমুখি হয়ে, মন্ত্রীর ওপর বোমাবাজির ঘটনায় ক্ষোভ প্রকাশ করেন মুখ্যমন্ত্রী। অন্যদিকে, আহতদের আর্থিক সাহায্যের আশ্বাস দেন তিনি।

বুধবার রাতে মুর্শিদাবাদের নিমতিতা স্টেশনে জাকির হোসেনকে লক্ষ্য করে বোমা ছোঁড়ে দুষ্কৃতীরা। ঘটনায় গুরুতর জখম হন মন্ত্রী। এছাড়াও জখম হয়েছেন বেশ কয়েকজন। ঘটনার পরেই মন্ত্রীকে জঙ্গিপুর হাসপাতালে নিয়ে ভর্তি করা হয়। পরে সেখান থেকে এসএমকেএম হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানেই অস্ত্রোপচার হওয়ার কথা রয়েছে।

- Advertisement -

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, ‘জাকিরকে গুরুতর জখম অবস্থায় অস্ত্রোপচারের জন্য পাঠানো হয়েছে। কয়েকজন রোগীকে তো দেখা যাচ্ছে না। আমি কোনওরকম দূর থেকে দেখেছি।’ মুখ্যমন্ত্রী আরও জানান, আহতরা সুস্থ হয়ে উঠলে কৃত্রিম অঙ্গপ্রত্যঙ্গের ব্যবস্থা করবে রাজ্য সরকার। যাঁরা গুরুতর আহত হয়েছেন তাঁদের ৫ লক্ষ টাকা আর্থিক সাহায্য করা হবে। এছাড়াও যাঁদের আঘাতের মাত্রা কম তাঁদের ১ লক্ষ টাকা দেওয়া হবে।

এদিকে জাকির হোসেনের ওপর হামলার ঘটনায় তদন্তভার নিল সিআইডি। তদন্তভার হাতে পেতেই নিমতিতার উদ্দেশে রওনা দিয়েছেন সিআইডি আধিকারিকেরা এবং ফরেন্সিক দল। মন্ত্রীকে লক্ষ্য করে বোমা ছোঁড়া হল কেন? তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে। হাসপাতাল সূত্রে খবর, তাঁর বাঁ পায়ের হাঁটু থেকে গোড়ালি পর্যন্ত একাধিক আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। স্প্লিন্টারের আঘাতে ক্ষতবিক্ষত হয়েছে বাঁ পায়ের নীচের অংশ। গোড়ালির হাড় ভেঙেছে। ঝলসে গিয়েছে পায়ের অনেকটা অংশ এবং হাতের একটি আঙুলও উড়ে গিয়েছে।

পুলিশ সূত্রে খবর, কলকাতায় যাওয়ার উদ্দেশে বুধবার রাতে রওনা হয়েছিলেন জাকির হোসেন। নিমতিতা স্টেশন থেকে তিস্তা–তোর্সা এক্সপ্রেস ধরার কথা ছিল তাঁর। আগে মন্ত্রীকে ঘিরে ছিলেন দলীয় কর্মী, সমর্থক এবং অনুগামীরা। মোবাইলে ভিডিও রেকর্ডিং করছিলেন কয়েকজন। সেই ভিডিওতে দেখা গিয়েছে, গাড়ি থেকে নেমে কর্মী সমর্থক নিয়ে স্টেশনের দিকে হেঁটে যাচ্ছেন মন্ত্রী। জয়ধ্বনির পাশাপাশি দলীয় স্লোগান চলছিল। আচমকা ভিডিও জুড়ে প্রবল বিস্ফোরণ। স্টেশন চত্বরে বোমা রাখা ছিল কিনা, তা আজ সিআইডির ফরেন্সিক দল তদন্ত করে দেখবে। যে প্ল্যাটফর্মে ঘটনাটি ঘটেছে, সেখানে কোনও সিসিটিভি নেই। সেই সুযোগ নেওয়া হয়েছিল বলে মনে করা হচ্ছে।

জঙ্গিপুর পুলিশ জেলার সুপার ওয়াই রঘুবংশী বলেন, ‘মন্ত্রী জাকির হোসেনের উপর হামলা চালানো হয়েছে। আমরা ঘটনার তদন্ত শুরু করেছি। ঘটনাস্থলে বম্ব স্কোয়াডের দল যাচ্ছে।’‌ প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি অধীররঞ্জন চৌধুরী বলেন, ‘জাকির তৃণমূল কংগ্রেসে এক ব্যতিক্রমী ব্যক্তিত্ব। পরিশ্রম এবং বুদ্ধির জোরে একজন প্রতিষ্ঠিত শিল্পপতি এবং মানুষের বন্ধু। এই ঘটনায় জড়িতদের অবিলম্বে গ্রেপ্তার করে শাস্তি দেওয়া উচিত।‘‌