অসম-বাংলা সীমানা পরিদর্শনে মুখ্যমন্ত্রী হিমন্ত বিশ্বশর্মা

162

তুফানগঞ্জ:  মুখ্যমন্ত্রী হওয়ার পর কোভিড পরিস্থিতি খতিয়ে দেখতে অসম-বাংলা সীমানা পরিদর্শনে এলেন অসমের মুখ্যমন্ত্রী হিমন্ত বিশ্বশর্মা। মঙ্গলবার দুপুরে তিনি বক্সিরহাট সংলগ্ন অসমের ধুবরী জেলার ছাগলীয়া ও কোকড়াঝাড় জেলার শ্রীরামপুরে অসম বাংলা সীমানা পরিদর্শন করেন। করোনা পরিস্থিতির মধ্যে সড়ক পথে পরিবহন ব্যবস্থা চলছে। প্রতিদিন কয়েক হাজার লরি চালক ও খালাসি অসম থেকে বাংলা ও বাংলা থেকে অসমে প্রবেশ করছেন। তাদের কোভিড টেস্ট করা হচ্ছে কি না তা খতিয়ে দেখতে অসম-বাংলা সীমানা পরিদর্শন করেন মুখ্যমন্ত্রী।

অসম-বাংলা সীমানা পরিদর্শনে মুখ্যমন্ত্রী হিমন্ত বিশ্বশর্মা| Uttarbanga Sambad | Latest Bengali News | বাংলা সংবাদ, বাংলা খবর | Live Breaking News North Bengal | COVID-19 Latest Report From Northbengal West Bengal India

- Advertisement -

এর আগে অসমের স্বাস্থ্যমন্ত্রী হিসেবে কয়েকবার ওই দুই এলাকায় এলেও মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে এদিনই তার প্রথম সফর। এদিন দুটি সীমান্তেই অস্থায়ী ভাবে গড়ে তোলা নাকা চেকিং পয়েন্টে স্বাস্থ্য ও প্রশাসনিক শিবির দুটি ঘুরে দেখেন ও কাজকর্ম নিয়ে বিশদ খোঁজ খবর নেন। মুখ্যমন্ত্রী জানান, পশ্চিমবঙ্গ ও অসম সীমানায় ছাগলীয়া ও শ্রীরামপুরের সীমানা দিয়ে প্রতিদিন কত সংখ্যক লোকের আনাগোনা হয়, তাদের কীভাবে পরীক্ষা করা হয়, বাইরে থেকে আসা ব্যক্তিদের কতজনের কোভিড পজিটিভ মেলে ও তা মোকাবিলায় কী কী ব্যবস্থা নেওয়া হয় তা কীভাবে পরিচালনা করা হয় সেটা নিজে খতিয়ে দেখতেই তিনি এদিন সীমানা পরিদর্শন করেন।

তিনি জানান, প্রতিদিন বাংলা সীমানা সংলগ্ন অসমের ধুবরী জেলায় গড়ে তিন হাজার জনকে র‍্যাপিড টেস্ট করানো হয়। তার মধ্যে ১৫০ জনের কোভিড পজিটিভ পাওয়া যায়। এই জেলায় আরটিপিসিআর খুব কম হয়। তাই প্রতিদিন সীমানা সহ গোটা জেলায় নূন্যতম ৭০০টি আরটিপিসিআর টেষ্ট করানোর জন্য নির্দেশ দিলেন। কোভিড মোকাবিলায় তারা গ্রামাঞ্চলে মাইক্রো কন্টেনমেন্ট জোন করার দিকে জোড় দিচ্ছেন। সেই সঙ্গে ধীরে ধীরে হোম কোয়ারান্টিন তারা তুলে দিচ্ছেন। গোটা অসম রাজ্যে বেশি কোভিড টেষ্ট করার ফলে কোভিড পজিটিভের হার কমলেও মোট আক্রান্তের সংখ্যা কমেনি।

তিনি আর জানান, অসম সরকারের স্বাস্থ্যবিভাগ কোভিড মোকাবিলায় সবচেয়ে ভাল কাজ করে চলেছে। যদি সারা ভারতের বিচারে কোভিড মোকাবিলায় কাজের ভিত্তিতে পুরস্কার দেওয়া হত তবে সেক্ষেত্রে প্রথম পুরস্কার পেত অসম সরকারের স্বাস্থ্য বিভাগ। ইতিমধ্যে রাজ্যে এক লক্ষ টিকাকরণ হয়ে গিয়েছে। তাঁর রাজ্যে অক্সিজেনের কোনও ঘাটতি নেই। তাদের নিজস্ব অক্সিজেন উৎপাদন ব্যবস্থা ছাড়াও প্রতি সপ্তাহে কেন্দ্র থেকে ৮০ মেট্রিক টন অক্সিজেন পান। তা দিয়ে রাজ্যের চাহিদা মেটানোর পর সপ্তাহে ১৫ মেট্রিকটন অক্সিজেন প্রতিবেশী রাজ্য অরুণাচল, নাগাল্যান্ড, মেঘালয়, ত্রিপুরা ও মিজোরামকে সরবরাহ করেন। তবে এদিন কোভিড মোকাবিলায় প্রতিবেশী তৃণমূল শাসিত পশ্চিমবঙ্গ নিয়ে তাকে প্রশ্ন করা হলেও তিনি কোনও মন্তব্য করেন নি।প্রসঙ্গত, সোমবার অসমে বিধানসভা অধিবেশন ছিল। সেখান থেকেই অসমের মুখ্যমন্ত্রী অসম বাংলা সীমানা পরিদর্শনে যান।