অপরাজিত ইতালিকে আটকাতে ভরসা বেল

রোম : টানা ২৯ ম্যাচ অপরাজিত, তার মধ্যে শেষ ১০ ম্যাচে জয়ের সঙ্গে এসেছে ক্লিনশিটও। রবার্তো মানচিনির অপরাজিত ইতালিকে আটকাতে গ্যারেথ বেলই ভরসা করছে ওয়েলস।

জোড়া জয়ের সুবাদে আগেই নকআউটে ইতালি। শনিবার রাতে রোমানিয়ার স্টাডিও অলিম্পিয়াকোতে অন্তত এক পয়েন্ট পেলে ওয়েলসের পরের পর্বে যাওয়া নিশ্চিত হবে। এমনিতে এই ধরণের ম্যাচে নকআউট নিশ্চিত করা টিম পরীক্ষার রাস্তায় যায়। কিন্তু হেডস্যর মানচিনি স্পষ্ট করে দিয়েছেন, গ্রুপের শেষ ম্যাচেও পূর্ণশক্তির দল নামাবেন। পরের পর্বের কথা ভেবে ওয়েলসের বিরুদ্ধে মার্কো ভেরাত্তিকে মাঝমাঠে ফেরাতে পারে ইতালি। চোট সারিয়ে খেলার জন্য তৈরি তিনি। অবশ্য ম্যাচ না হারলেই প্রায় ১০০ বছরের পুরোনো রেকর্ড স্পর্শ করবেন সিরো ইম্মোবিলেরা। সেবারও টানা ৩০ ম্যাচ হারের মুখ দেখেননি আজুরি-ব্রিগেড।

- Advertisement -

ইতালির স্বপ্ন ভাঙতে পারেন ওয়েলস উইজার্ড। প্রথম ম্যাচে নজরে আসেননি। কিন্তু তুরস্কের বিরুদ্ধে দুটি গোলই করিয়েছেন। নিজে ফাউলের শিকার হয়ে পাওয়া পেনাল্টি অবশ্য কাজে লাগাতে পারেননি। বিষয়টি নিয়ে রিয়াল মাদ্রিদের তারকা উইঙ্গারের বক্তব্য, পেনাল্টিটা মিস করে খারাপ লাগছে। তবে অনেকদিন পর মাঠে নিজের ফর্ম খুঁজে পেয়েছি। জোড়া অ্যাসিস্ট করেছি। জানি দেশের জার্সিতে অনেকদিন গোল করিনি। কিন্তু গোলে অবদান নেই এমন নয়। তুরস্কের বিরুদ্ধে বেল ও ড্যানিয়েল জেমসের প্রান্ত বদলে দিয়েছিলেন ওয়েলস বস রব পেজ। তাতেই ভিন্টেজ বেলের দেখা মিলল।

ইতালির মিডফিন্ডার ফ্রেডরিকো চিয়েশা অবশ্য বেলের পাশাপাশি অ্যারন র‌্যামসেকে নিয়ে উদ্বিগ্ন। জুভেন্টাসের সতীর্থ সম্পর্কে বললেন, ও বুদ্ধিমান ফুটবলার। ক্লাবে সকলে ওকে সম্মান করে। তুরস্কের বিরুদ্ধে র‌্যামসের গোলেই লিড নেয় ওয়েলস। চোটের জন্য এই ম্যাচে জিওর্জিও চিয়েলিনির খেলার সম্ভাবনা কম। তবে তিনি প্রতিপক্ষকে নিয়ে সাবধানী। বললেন, ওরা ভালো দল। দীর্ঘদিন একসঙ্গে খেলছে। ফলে বোঝাপড়া ভালো। ২০০৩ সালে শেষবার মুখোমুখি হয়েছিল দুপক্ষ। সেই ম্যাচে ৪-০ গোলে জেতে ইতালি।

পরিসংখ্যান বলছে, এই দুই প্রতিপক্ষের মধ্যে কোনও ম্যাচ এখনও ড্র হয়নি। ৯ বারে সাতবার জিতেছে ইতালি, বাকি দুটিতে শেষ হাসি হেসেছে ওয়েলস।