করোনাকালে বেড়েছে বাল্যবিবাহ, যৌন নিগ্রহ

54

পঙ্কজ মহন্ত ও বিপ্লব হালদার, বালুরঘাট ও তপন : পুলিশ ও চাইল্ড লাইনের লাগাতার অভিযানের পরও বাল্যবিবাহে যে লাগাম পরানো যাচ্ছে না। তপনে এক স্কুল পড়ুয়ার অন্তঃসত্ত্বা হয়ে পড়ার ঘটনা চোখে আঙুল দিছে সেটাই প্রমাণ করে দিল।

সাম্প্রতিক রিপোর্ট বলছে, করোনা আবহে অনেক অভিভাবকই আঠারো বছরের কমবয়সি মেয়েদের লুকিয়ে বিয়ে দিয়েছেন। পাশাপাশি শিশু নিগ্রহের ঘটনায় একাধিক ক্ষেত্রেই দেখা গিয়েছে, ভিকটিম কম্পেন্সেশনের জন্য অভিযোগ জমা পড়লেও সরে দাঁড়িয়েছে নিগৃহীতের পরিবার। মঙ্গলবার এক কর্মশালার মধ্যে দিয়ে বিভাগের কর্মী-আধিকারিকদের নিয়ে বৈঠক করল আইনি পরিষেবা কর্তৃপক্ষ।

- Advertisement -

এদিনের কর্মশালার বিষয়ে জেলা আইনি পরিষেবা কর্তৃপক্ষের সম্পাদিকা কুসুমিকা দে মিত্র বলেন, অভিযান চালিয়ে বাল্যবিবাহ সম্পূর্ণভাবে রোধ করা যাচ্ছে না। করোনা আবহে তা বেড়েই চলেছে। জেলার বিভিন্ন ব্লকে ও প্রত্যন্ত গ্রামে এর পরিমাণ অনেকটাই বেশি। পাশাপাশি শিশুদের ওপর যৌন নির্যাতনের ঘটনা বেশি করে সামনে আসছে। কিন্তু অনেক শিশু ও তার পরিবার ভিকটিম কম্পেন্সেশন সম্পর্কে ওয়াকিবহাল নয়। প্যারালিগাল ভলান্টিয়ারদের এবিষয়ে সচেতন করতেই আমরা কর্মশালার আয়োজন করেছি। বালুছায়া প্রেক্ষাগৃহে এই কর্মশালায় উপস্থিত ছিলেন শিশু কল্যাণ সমিতি ও চাইল্ড লাইনের আধিকারিক ও কর্মী, জেলা পুলিশ সুপার, বালুরঘাট থানার আইসি প্রমুখ।

তবে তপনের ওই নাবালিকাকে বিয়ে করায় এক যুবককে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। সেই সঙ্গে নাবালিকাকে সিডব্লিউসির মাধ্যমে হোমে পাঠানোর ব্যবস্থা করা হয়েছে। ধৃত যুবকের নাম প্রকাশ বর্মন(২২)। তপন থানার রামচন্দ্রপুর এলাকায় তাঁর বাড়ি। তপনেরই এক প্রৌঢ়ার মেয়ে ও জামাইয়ের মৃত্যু হয় কয়েক বছর আগে। তাঁদের মৃত্যুর পর ১৪ বছর ও ৯ বছরের দুই নাতনিকে তিনি নিজের কাছে রেখেই মানুষ করছিলেন। অনাথ নাতনিদের ঠিকমতো খেতে দিতে পারতেন না তিনি । প্রায় পাঁচ মাস আগে ১৪ বছরের নাতনির বিয়ে দিয়ে দেন ওই প্রৌঢ়। সম্প্রতি ওই কিশোরী অন্তঃসত্ত্বা হয়ে পড়লে তা প্রকাশ্যে আসে। বিষয়টি জানতে পারার পরেই তৎপর হয় দক্ষিণ দিনাজপুর জেলা প্রশাসন এবং চাইল্ড লাইন। সমস্ত তথ্য সংগ্রহ করার পরেই নাবালিকাকে বিয়ে করার অভিযোগে ২২ বছরের যুবককে পুলিশ গ্রেপ্তার করে।