ভারতের চেয়ে পরমাণু শক্তিতে এগিয়ে চিন, পাকিস্তান

438

নয়াদিল্লি : চিন ও পাকিস্তানের কাছে ভারতের চেয়ে বেশি পরমাণু ক্ষেপণাস্ত্র রয়েছে বলে যুদ্ধ ও অস্ত্র বিষয়ক সাম্প্রতিক একটি বার্ষিক সমীক্ষায় জানা গিয়েছে। স্টকহোম ইন্টারন্যাশনাল পিস রিসার্চ ইনস্টিটিউটের (সিপ্রি)-র ইয়ার বুক ২০২০ অনুযায়ী, চিনের অস্ত্রাগারে পরমাণু অস্ত্রের সংখ্যা এই মুহূর্তে ৩২০টি। আর পাকিস্তান ও ভারতের ভাণ্ডারে মজুত পরমাণু অস্ত্রের সংখ্যা যথাক্রমে ১৬০ ও ১৫০। এই পরিসংখ্যান চলতি বছরের জানুয়ারি পর্যন্ত বলে জানানো হয়েছে। সিপ্রি-র রিপোর্টে বলা হয়েছে, পরমাণু অস্ত্রের নিরিখে গত বছরও (২০১৯) ওই তিনটি দেশের শক্তির তারতম্য একইরকম ছিল। চিনের অস্ত্রভাণ্ডারে যেখানে ২৯০টি পরমাণু অস্ত্র ছিল, পাকিস্তান ও ভারতের ভাণ্ডারে সেখানে ছিল যথাক্রমে ১৫০-১৬০ ও ১৩০-১৪০টি। সম্প্রতি পূর্ব লাদাখে প্রকৃত নিয়ন্ত্রণরেখা বরাবর ভারত-চিন সংঘাতের জেরে উত্তরাখণ্ড, সিকিম ও অরুণাচলপ্রদেশের কাছে সীমান্তের দুপারে সামরিক কার্যকলাপ বেড়েছে। এই প্রেক্ষিতে পড়শি দেশগুলির পরমাণুশক্তি সংক্রান্ত বিদেশি সংস্থার এই রিপোর্ট বিশেষ তাৎপর্যপূর্ণ বলে মনে করা হচ্ছে।

বর্ষপঞ্জি প্রকাশ করে সিপ্রি এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, ইদানীংকালে চিন যে কেবল তাদের পরমাণু অস্ত্রাগারের উল্লেখযোগ্য আধুনিকীকরণ ঘটিয়েছে তা নয়, একইসঙ্গে স্থল, জল ও আকাশসীমায় শক্তি বাড়িয়ে  নিয়েছে পরমাণু অস্ত্রের সাহায্যে। পদাতিক, নৌসেনা ও বিমানবাহিনীর হাতে পরমাণু ক্ষেপণাস্ত্র তুলে দিয়ে  তারা একটি ত্রিমুখী সমন্বয় গড়ে তুলেছে। ভারত ও পাকিস্তান ধীরে ধীরে তাদের পরমাণুশক্তি বাড়ালেও তা চিনের সঙ্গে তুলনীয় নয়। সিপ্রির রিপোর্টে বলা হয়েছে, ২০১২ সালের তুলনায় ২০১৯ সালে সামগ্রিকভাবে পরমাণু অস্ত্রের সংখ্যা কমলেও প্রায় সব দেশই তাদের অস্ত্রাগারের আধুনিকীকরণের মাধ্যমে পরমাণুশক্তি বাড়িয়ে নিয়েছে।

- Advertisement -

তবে পরমাণু অস্ত্রশক্তির নিরিখে সকলের ধরাছোঁয়ার বাইরে রয়েছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও রাশিয়া। গোটা বিশ্বের মোট পরমাণু অস্ত্রের ৯০ শতাংশই এই দুটি দেশের হাতে বলে জানা গিয়েছে। রাশিয়া ও আমেরিকার হাতে যথাক্রমে ৬৩৭৫ ও ৫৮০০টি পরমাণু অস্ত্র (ওয়ারহেডস) রয়েছে বলে জানা গিয়েছে সিপ্রির রিপোর্টে। এছাড়া পরমাণু অস্ত্র রয়েছে ব্রিটেন, ফ্রান্স, ইজরায়েল ও উত্তর কোরিয়ার হাতে। অর্থাৎ, বিশ্বে মাত্র ৯টি দেশ ছাড়া আর কারও অস্ত্রভাণ্ডারে পরমাণু অস্ত্র নেই। সব মিলিয়ে মোট পরমাণু অস্ত্র রয়েছে ১৩,৪০০টি। এর মধ্যে ৩৭২০টি অস্ত্র কার্যকর অবস্থায় রয়েছে, যার মধ্যে আবার ১৮০০টি রয়েছে উচ্চপর্যায়ের সংকেতের অপেক্ষায়।

পরমাণু অস্ত্র সংক্রান্ত বিষয়ে গোপনীয়তা ও অস্বচ্ছতার বিপদ নিয়ে সিপ্রির রিপোর্টে সতর্ক করে দেওয়া হয়েছে। যেমন রিপোর্টে লেখা হয়েছে, চিন ইদানীংকালে তাদের পরমাণুশক্তি নিয়ে যতটা জাঁক করতে শুরু করেছে, ততটা তথ্য অন্যদের জানায়নি। ভারত ও পাকিস্তান তাদের পরমাণু অস্ত্র পরীক্ষার খবর প্রকাশ করলেও অস্ত্রের শক্তি নিয়ে তথ্য গোপন করেছে। প্রতিরক্ষা ব্যয়ে আমেরিকা ও চিনের পরেই ভারতের স্থান। ২০১৮ সালের তুলনায় ৬.৮ শতাংশ খরচ বাড়িয়ে গত বছর ভারত প্রতিরক্ষা খাতে ৭১১০ কোটি ডলার খরচ করেছিল।