নয়াদিল্লি, ২১ নভেম্বরঃ রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দের অরুণাচল প্রদেশ সফরে আপত্তি জানাল চিন। কোবিন্দের সফর নিয়ে বেজিংয়ের মন্তব্য, চিন-ভারত দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক যখন একটা ‘গুরুত্বপূর্ণ সন্ধিক্ষণে’ রয়েছে, সেসময়ে ভারতের সীমান্ত বিতর্ক ‘জটিল করে তোলা’ উচিত নয়। সংশ্লিষ্ট এলাকায় ভারতীয় নেতার কার্যকলাপে প্রবল বিরোধিতা জানাচ্ছে চিন।

যখনই কোনও বড় ভারতীয় নেতা অরুণাচল সফর করেন, তখনই চিন আপত্তি জানায়। সম্প্রতি প্রতিরক্ষা মন্ত্রী নির্মলা সীতারামনের অরুণাচল সফর নিয়েও চিন প্রবল আপত্তি করেছিল। ভারত তাতে গুরুত্ব দেয়নি। রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দ অরুণাচল সফর করলেও যে বেজিং কড়া বিবৃতি দেবে, তা প্রত্যাশিতই ছিল। কিন্তু তাতে কর্মসূচির কোনও পরিবর্তন হয়নি। নির্ধারিত সূচি মেনেই অরুণাচল সফর করে এসেছেন রাষ্ট্রপতি।

এশিয়ার দুই বৃহত্ শক্তি ২৮ আগস্ট শেষ হওয়া ৭৩ দিন ধরে চলা ডোকালাম বিরোধে ক্ষতিগ্রস্ত দুদেশের সম্পর্ক মেরামতের প্রয়াস চালাচ্ছে একদিকে, তখনই রাষ্ট্রপতির অরুণাচল সফরের বিরোধিতা করল চিন। সামনেই নয়াদিল্লি সফরে আসছেন চিনের বিদেশমন্ত্রী ওয়াং ই। রাশিয়া-ভারত-চিন ত্রিপাক্ষিক বৈঠকে থাকবেন তিনি, পাশাপাশি ১৯৬২এর যুদ্ধ থেকে চলতে থাকা সীমান্ত সমস্যা নিয়ে ভারত-চিন বিশেষ প্রতিনিধি বৈঠকেও যোগ দেবেন।