চিনে উইন্টার গেমসর বিরোধিতায় সেনেটররা

ওয়াশিংটন : গ্রীষ্মকালীন অলিম্পিক আয়োজন সংক্রান্ত বিতর্ক তুঙ্গে। এরমধ্যেই শীতকালীন অলিম্পিক নিয়ে সরব হয়েছেন মার্কিন সেনেটররা।

২০২২ সালের ফেব্রুয়ারিতে চিনের বেজিংয়ে শীতকালীন অলিম্পিক হওয়ার কথা। উইঘুর সহ বিভিন্ন জনগোষ্ঠীর উপর অত্যাচারে অভিযুক্ত চিনকে গেমস আয়োজনের সুযোগ দেওয়ার বিপক্ষে মার্কিন সেনেটররা। এই তালিকায় ডেমোক্র‌্যাটদের পাশাপাশি রিপাবলিকানরাও রয়েছেন। তাঁরা চাইছেন, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র সহ বিশ্বের প্রথম সারীর সমস্ত দেশই চিনে অলিম্পিক আয়োজনের বিরোধিতায় সরব হোক।

- Advertisement -

মঙ্গলবার ওয়াশিংটনে একটি শুনানিতে ডেমোক্র‌্যাট সেনেটর ন্যান্সি পেলোসি বলেন, আমি এবং আমার মতো অনেকেই চিনে মানবাধিকার লঙ্ঘনে প্রশাসনিক মদতের ঘটনায় ক্ষুব্ধ। আমরা চাই প্রথমসারীর সব দেশ চিনে যেতে অসম্মত হোক। বিভিন্ন দেশের প্রশাসনিক প্রধানদের কাছে আমাদের অনুরোধ, আপনারা দয়া করে অলিম্পিকে উপস্থিত হয়ে চিন সরকারের হাত শক্ত করবে না। ওরা রীতিমতো গণহত্যা চালাচ্ছে। এই পরিস্থিতিতে চিনে গেলে নেতাদের মানবাধিকার ও বিশ্ব শান্তির মতো বিষয়ে কথা বলার নৈতিক অধিকার থাকবে না বলেও মনে করছেন তিনি।

ন্যান্সির দলের সেনেটর জিম ম্যাকগোভের্ন শীতকালীন অলিম্পিক অন্যত্র নিয়ে যাওয়ার দাবি জানিয়েছেন। তিনি বলেন, আমি চাইব আইওসি চিনের পরিবর্তে অন্য কোনও দেশে এই প্রতিযোগিতা সরিয়ে নিয়ে যাক। এমন কোনও দেশ যারা মানবাধিকার রক্ষায় আন্তরিক ও গণহত্যা করে না। করোনার জন্য টোকিও অলিম্পিক একবছর স্থগিত করা হয়েছে। ফলে গণহত্যার জন্য অলিম্পিক একবছর স্থগিত করা যেতেই পারে। রিপাবলিকান কংগ্রেস সদস্য ক্রিস স্মিথের মতে, আর্থিক লাভের জন্য গণহত্যার মতো গুরুতর বিষয়ও উপেক্ষা করা হচ্ছে।

মার্কিন সেনেটরদের দাবি উড়িয়ে দিয়েছেন সেদেশের চিনা দূতাবাসের মুখপাত্র লিউ পেংয়ু। তাঁর কটাক্ষ, বুঝতে পারছি না কীভাবে মার্কিন সেনেটাররা নৈতিক অধিকারের মতো বিষয়ে কথা বলছে। অতীত হোক বা বর্তমান, কোনও ক্ষেত্রেই ওদের মানবাধিকারের মতো বিষয়ে কথা বলার যোগ্যতা নেই। ওরা চিনের বিরুদ্ধে ভিত্তিহীন অভিযোগ তুলছে। গেমস বয়কট নিয়ে মার্কিন প্রশাসন কোনও মন্তব্য করেনি এখনও।