উদ্যোগী মুখ্যমন্ত্রী, চোপড়ার আনারস মিলবে কলকাতায়

86

রায়গঞ্জ: মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যাযয়ের উদ্যোগে এবার কলকাতার বাজারে মিলবে চোপড়ার আনারস। উত্তর দিনাজপুর জেলা কৃষি বিপণন দপ্তরের মাধ্যমে উৎপাদিত আনারস পাঠানোর প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে।

উত্তর দিনাজপুরের চাষিদের স্বার্থে চোপড়া এবং ইসলামপুরের মরশুমি আনারস যাতে কলকাতার বাজারে বিক্রির ব্যবস্থা করা যায় তা মুখ্যমন্ত্রী ঘোষণা করেছিলেন। গতবার করোনা আবহে আনারস নেপালে রপ্তানি করতে না পারায় ক্ষতির মুখে পড়তে হয়েছিল চাষিদের। এবার যাতে পুজোর মরশুমে রাজ্য এবং রাজ্যের বাইরেও আনারস রপ্তানি করা যায় সে বিষয়ে উদ্যোগ নিয়েছেন স্বয়ং মুখ্যমন্ত্রী। জেলা উদ্যানপালন বিভাগ এবং কৃষি বিপণন দপ্তর আনারস কলকাতায় পাঠানোর উদ্যোগ নিয়েছে। দুর্গাপুজার মধ্যে যাতে রাজ্যের বিভিন্ন জেলায় আনারস বিক্রি করা যায় সেই উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। জেলার উদ্যানপালন দপ্তর সূত্রে জানা গিয়েছে, চোপড়া ও ইসলামপুর ব্লকের ৭,৮০০ হেক্টর জমিতে আনারস চাষ করা হয়। জেলায় মূলত ‘জায়েন্ট কি’ এবং ‘কুইন’ নামে দুই ধরনের আনারস উৎপাদিত হয়। তবে ‘মরিসাস’ নামে ছোট আকারের আনারস চাষ করার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। বর্তমানে এই জেলায় প্রায় সাত হাজার চাষি আনারস উৎপাদনের সঙ্গে জড়িত রয়েছে। চোপড়ার মাঝিয়ালি গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকার বিস্তীর্ণ কৃষিজমিতে সবচেয়ে বেশি আনারস চাষ হয়। গতবার এক লক্ষ ৪২ হাজার মেট্রিক টন আনারস উৎপাদন হয়েছে জেলায়। জুলাই-অগাস্ট মাসে আনারস বাজারে আসে। সেইসময় চোপড়ায় আনারস দশ থেকে পনেরো টাকা কেজি দরে বিক্রি হয়।

- Advertisement -

জেলা উদ্যানপালন দপ্তরের আধিকারিক সুফল মণ্ডল জানান, করোনা আবহে ভারত-নেপাল সীমান্ত বন্ধ থাকায় গতবার আনারস চাষিদের ক্ষতির মুখে পড়তে হয়েছিল। তবে এবার যাতে ক্ষতির মুখে পড়তে না হয় সেকারণেই কলকাতার পাশাপাশি ভিন রাজ্যেও আনারস রপ্তানির উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। এতে আনারস চাষিদের আয় বাড়বে। পাশাপাশি আনারস চাষে আরও উৎসাহিত হবেন চাষিরা। এদিকে কলকাতায় আনারস রপ্তানির তৎপরতা শুরু হতেই এক ধাক্কায় প্রতি কেজি আনারসের দাম ১৭ থেকে ৩০ টাকায় উঠে গিয়েছে। রপ্তানি শুরু হলে দাম বাড়বে বলেই মনে করছেন ব্যবসায়ীরা।