১ টাকার বিনিময়ে সকলকে খাইয়ে নজির গড়ছেন ধুলিয়ানের চুন্নু বাবু

108

অর্ণব চক্রবর্তী, ফারাক্কা: অনেকেরই ইচ্ছে আছে কিন্তু সামর্থ্য নেই। আবার কারও সামর্থ্য আছে কিন্তু ইচ্ছে নেই। কিন্তু যার মধ্যে সাধ্য-সামর্থ্যও দুইই আছে সেই প্রকৃত মানবসেবা করতে পারে। ধুলিয়ান এবং ফরাক্কা জুড়ে এমনই এক ব্যবসায়ীর নাম এখন মানুষের মুখে মুখে। সামশেরগঞ্জ থানা পাড়া কালী মন্দির ট্রাস্ট গঠন করে করোনা আবহে অভুক্ত ভবঘুরেদের কথা মাথায় রেখে মাত্র এক টাকার বিনিময়ে পেট ভরে ডাল ভাত খাওয়াতে উদ্যোগী হয়েছেন রামকৃষ্ণ সিং ওরফে চুন্নুবাবু। সোমবার সকাল থেকেই কোমর বেঁধে নেমে পড়েছেন পুজো কমিটির সদস্যরা। মেনুতে থাকছে ডাল, ভাত, রুটি, তরকারি, পাপড়, চাটনি, মিষ্টি। সকাল থেকেই কুপন নিয়ে খাবার সংগ্রহ করছেন স্থানীয়রা।

রামকৃষ্ণ বাবু বলেন, ‘করোনা আবহে অনেকে কাজ হারিয়েছে। অনেক গরিব মানুষ ভিক্ষা করে খান। এলাকায় মজদুর অনেক রয়েছে। তাদের সকলের কথা মাথায় রেখে প্রতিদিন প্রায় ২০০-২৫০ জন খাওয়ানোর ব্যবস্থা করেছি আমরা। পাশাপাশি, কারও কোভিড রিপোর্ট পজিটিভ এলে আধার কার্ড এবং রিপোর্ট দেখালে আমাদের কাছে প্রয়োজনীয় ওষুধ অক্সিজেন এবং খাবার পাবেন।’

- Advertisement -

তিনি বলেন, অনেক পুরোনো এই কালী মন্দির। মন্দিরের পাশাপাশি, এই শহরে সব ধর্ম-বর্ণের মানুষের সুন্দর সহবস্থান রয়েছে। সামাজিকতা শিখতে গেলে বা মনে বিশ্বাস পেতে হলে মন্দির মসজিদে আসতে হবে মানুষকে বলে মনে করেন তিনি। তিনি আরও বলেন, ‘অনেক ছোটবেলায় বাবা মারা গিয়েছে। বাবা এই ধরণের বহু সেবামূলক কাজ করতেন। এখনও তাই এক ডাকেই সবাই চেনো তাকে। তাই হয়তো আমার মধ্যেও এই ইচ্ছের প্রকাশ ঘটেছে। আমার ছোট মেয়ে এবং স্ত্রী তারাও আমার এই কাজের সাথী সব সময়।’ পাশাপাশি, প্রশাসন এবং সামশেরগঞ্জ থানা সব সময় সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিয়েছে বলেও জানান তিনি।

স্থানীয় বাসিন্দা কৃষ্ণা মজুমদার বলেন, ‘খুবই ভালো উদ্যোগ এটা। যেভাবে উনি সবসময় মানুষের পাশে দাঁড়ান তার তুলনা হয়না।’ ফারাক্কার বিধায়ক মনিরুল ইসলামের বলেন, চুন্নু যেভাবে সাধারণ মানুষ এবং সামশেরগঞ্জ বাসীকে সহযোগিতা করছে তার তুলনা হয়না। করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন দু’দিনের ওষুধ ফ্রি পাবেন। গ্যাস সিলিন্ডার ব্যবস্থা করে দেওয়া হবে এবং ১৪ দিনের ঔষধ কিট সম্পূর্ণ বিনামূল্যে দেওয়া হবে। এর সঙ্গে দুপুরের আহারের ব্যবস্থা রয়েছে। আমি বলব আরও অন্যান্য মানুষকে ওকে দেখে উদ্বুদ্ধ হতে।’

শুধু রাজনীতির মধ্যে থেকেই নয় ইচ্ছে থাকলেই একজন মানুষ আরেকজনের পাশে দাঁড়াতে পারে। সহযোগিতার হাত বাড়াতে পারে ধুলিয়ানের চুন্নুবাবু তারই প্রমাণ। তাঁর শেষ ইচ্ছে অসহায় বৃদ্ধ বৃদ্ধাদের জন্য সুন্দরভাবে একটি থাকার আশ্রয়স্থল গড়ে তোলা। সেকাজেও দ্রুততার সঙ্গে এগিয়ে চলেছেন তিনি।