তৃণমূল বিধায়ক খুনে ফের বিজেপি সাংসদকে তলব সিআইডির

495

কলকাতা: নদিয়া কৃষ্ণগঞ্জের তৃণমূল বিধায়ক সত্যজিৎ বিশ্বাস খুনের মামলায় ফের বিজেপি সাংসদ জগন্নাথ সরকারকে করল সিআইডি। মঙ্গলবার রাতে রাজ্য গোয়েন্দা পুলিশের সিআইডি শাখার তরফে একটি চিঠি পাঠিয়ে জগন্নাথ বাবুকে তাঁদের দপ্তরে হাজিরার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। আর এই নির্দেশের পরিপ্রেক্ষিতে বুধবার সকাল সাড়ে এগারোটা নাগাদ জগন্নাথ বাবু সিআইডি’র সদর দপ্তর ভবানী ভবনে গিয়ে হাজির হন। গোয়েন্দারা তাঁকে টানা চার ঘণ্টা ধরে জেরা করার পর ছেড়ে দেয়। তবে, ভবিষ্যতে আবারও ডাকা হতে পারে বলে জানানো হয়েছে জগন্নাথ বাবুকে।

উল্লেখ্য এটা নিয়ে ৬ বার জগন্নাথ বাবুকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য সিআইডি দপ্তরে ডাকা হল। এদিন সিআইডি দপ্তরে হজির হয়েই জগন্নাথ বাবু বলেন, রাজনৈতিক প্রতিহিংসা চরিতার্থ করতেই শাসক দলের নির্দেশে হেনস্থা করার উদ্দেশ্যেই সিআইডির গোয়েন্দাদের বারবার ডেকে পাঠাচ্ছে। শুধু তাই নয় এর আগেও চাকদা , রানাঘাট ও শান্তিপুর থানার বড়বাবুরা আমাকে কোয়ারান্টিনে পাঠানো নিয়ে একযোগে নোটিশ দিয়েছিল। আর তা মানা না হলে তাঁর বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়ার হুমকিও দেয় তারা বলেও তিনি এদিন জানান। জগন্নাথ বাবু আরও জানান, এর আগে পাঁচবার তাঁকে সিআইডির গোয়েন্দারা জেরা করলেও তাঁরা নতুন কোন সূত্র খুঁজে পাননি। শুধু তাই নয়, বিগত পাঁচ বারে তাঁকে সিআইডির গোয়েন্দাদের তরফে নুতন কোন তথ্য জানতে প্রশ্ন করা হয়নি। একই প্রশ্ন বারবার তাঁকে করা হচ্ছে। এছাড়াও, হেনস্থা ও হয়রানি করতে ঘন্টার পর ঘন্টা সিআইডির সদরদপ্তর ভবানী ভবনে বসিয়ে রেখে দেওয়া হচ্ছে।

- Advertisement -

তৃণমূল বিধায়ক সত্যজিৎ বিশ্বাস খুনের অভিযুক্তদের আশ্রয় দেওয়ার অভিযোগ ওঠে বিজেপি সাংসদ জগন্নাথ সরকারের বিরুদ্ধে। ২০১৯ সালের ৯ ফেব্রুয়ারি সন্ধ্যায় দুষ্কৃতীর গুলিতে খুন হন তৃণমূল বিধায়ক সত্যজিৎ বিশ্বাস। আর ওই ঘটনার পরপরই পুলিশের তরফে বিজেপির কেন্দ্রীয় নেতা মুকুল রায় সহ চারজনের বিরুদ্ধে এফআইআর দায়ের করা হয়।