গাড়ি দাঁড় করিয়ে তোলা চাওয়ার অভিযোগ সিভিক ভলান্টিরারের বিরুদ্ধে, গ্রেপ্তার ২, পলাতক ১

551

প্রদীপ চট্টোপাধ্যায়, বর্ধমান: গভীর রাতে গাড়ি দাঁড় করিয়ে হুমকি দিয়ে চালকের কাছ থেকে তোলা চাওয়ার অভিযোগে গ্রেপ্তার ২ সিভিক ভলান্টিয়ায়। ধৃতদের নাম কৃষ্ণগোপাল পাল ও সুজয় মাঝি। তাদের বাড়ি পূর্ব বর্ধমানের আউসগ্রাম থানার বেলুটি ও শ্রীকৃষ্ণপুরে।

ছোট মালবাহী গাড়ির এক চালকের দায়ের করা অভিযোগের ভিত্তিতে রবিবার রাতেই আউসগ্রাম থানার পুলিশ দুই সিভিক ভলান্টিয়ারকে গ্রেপ্তার করে। গ্রেপ্তারি এড়াতে গা ঢাকা দিয়েছে আউসগ্রামের বেরেন্ডা নিবাসী অপর এক সিভিক ভলান্টিয়ায় বিশ্বজিৎ মেটে। ৩ সিভিক ভলান্টিয়ারই আউসগ্রাম থানায় কর্মরত। সুনির্দিষ্ট ধারায় মামলা রুজু করে পুলিশ ধৃত দুই সিভিক ভলেন্টিয়ারকে সোমবার পেশ করে বর্ধমান আদালতে। ভারপ্রাপ্ত সিজেএম ২ জনকে জেল হেপাজতে পাঠিয়েছেন। মঙ্গলবার ফের আদালতে তাদের পেশ করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

- Advertisement -

আউসগ্রাম থানায় দায়ের করা অভিযোগে চালক শেখ মুস্তাকিম জানিয়েছেন, রবিবার রাত সাড়ে ১২টা নাগাদ ভাড়া খাটিয়ে ফিরছিলেন। পথে মঙ্গলকোট থানার জালপাড়া মোড়ের কাছে দুটি মোটরবাইক নিয়ে দাড়িয়েছিল কৃষ্ণগোপাল, সুজয় ও বিশ্বজিৎ। ওই তিন যুবক তাঁর গাড়িটি সেখানে জোরপূর্বক দাঁড় করানোর চোষ্টা করে। যুবকদের বাধা কাটিয়ে কোনওরকমে তিনি সেখান থেকে এগিয়ে যান। এরপর ওই যুবকরা বাইকে চড়ে তাঁর গাড়ি পিছু ধাওয়া করে। রসুল গ্রামের কাছে যুবকরা তাঁর গাড়িটি দাঁড় করায়। তিন যুবক হুমকি দিয়ে তাঁর কাছে টাকার দাবি করে বলে টাকা না দিলে তারা তাঁকে মারবে। এই হুমকি অগ্রাহ্য করে মুস্তাকিম তাঁর গাড়ি নিয়ে পিচকুড়ির দিকে এগিয়ে চলেন।

মুস্তাকিমের অভিযোগ, তিন যুবক তখনও ফের একই কায়দায় তাঁর পিছু ধাওয়া করে। এমটা দেখে মুস্তাকিমের মনে হয় যুবকরা দুস্কৃতি হতে পারে। এরপর আর দেরি না করে মুস্তাকিম তাঁর গ্রামের লোকেদের ফোন করে ঘটনার কথা জানান। তারা দ্রুত পিচকুড়ি এলাকায় পৌছে ওই ৩ যুবককে ধরে পুলিশে খবর দেয়।

মুস্তাকিমের গ্রামের লোকজন যুবকদের ধরে জিজ্ঞাসাবাদ চালায়। তখন যুবকরা স্বীকার করে তারা আউসগ্রাম থানার সিভিক ভলান্টিয়ার। আউসগ্রাম থানার পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌছানোর আগেই ওই ৩ যুবকের মধ্যে বিশ্বজিৎ মেটে সেখান থেকে পালিয়ে যায়। মুস্তাকিমের দায়ের করা অভিযোগের ভিত্তিতে এরপর আউসগ্রাম থানার পুলিশ দুই সিভিক ভলান্টিয়ার কৃষ্ণগোপাল পাল ও সুজয় মাঝিকে গ্রেপ্তার করে। তাদের ব্যবহৃত দুটি মোটরবাইক পুলিশ বাজেয়াপ্ত করেছে। তদন্তে নেমে পুলিশ পলাতক সিভিক ভলেন্টিয়ারেও খোঁজ চালাচ্ছে। সিভিক ভলান্টিয়ারদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি করেছেন মুস্তাকিমের পরিবার পরিজন ও গ্রামবাসীরা।