প্রতিবেশী মহিলার সঙ্গে অবৈধ সম্পর্কে লিপ্ত সিভিক ভলান্টিয়ার, জুতার মালা পরাল গ্রামবাসীরা

306

ঘোকসাডাঙ্গা: বছর কয়েক ধরেই প্রতিবেশী এক মহিলার সঙ্গে অবৈধ সম্পর্কে জড়িয়ে এক সিভিক ভলান্টিয়ার। বিষয়টি জানাজানি হতেই তাঁদের গ্রাম ছাড়ার নিদান দেওয়া হয়। বৃহস্পতিবার তার শেষদিন ছিল। স্থানীয় সূত্রে খবর, গ্রাম ছাড়ার নিদান না মানায় সিভিক ভলান্টিয়ার সহ ওই মহিলার মুখে কালি মাখিয়ে গলায় জুতার মালা পরানো হয়। এরপর তাদের গ্রামের রাস্তায় রাস্তায় ঘোরালেন স্থানীয় মহিলারা। বৃহস্পতিবার ঘটনাটি ঘটেছে মাথাভাঙ্গা-২ নম্বর ব্লকের ফুলবাড়ি গ্রাম পঞ্চায়েতের ছাড়ারপাড় এলাকায়।

স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, ওই মহিলার স্বামী কাজের সুবাদে ভিন রাজ্যে থাকেন। অভিযোগ, এমতবস্থায় ওই মহিলার সঙ্গে অবৈধ সম্পর্কে জড়িয়ে পড়েন স্থানীয় এক সিভিক ভলান্টিয়ার। এবিষয়ে স্থানীয় মহিলারা জানান, আগেও যুবকের সঙ্গে ওই মহিলার অবৈধ সম্পর্কের বিষয়টি নিয়ে এলাকায় বৈঠক হয়েছিল। সেসময় ওই যুবককে বলা হয়েছিল নিজেকে পরিবর্তন করতে। তবে, কোনও লাভ হয়নি। অভিযোগ, এরপর গত শনিবার ওই মহিলাকে তাঁর বাবার বাড়ি থেকে নিজের বাড়িতে নিয়ে আসে যুবক।

- Advertisement -

স্থানীয় এক মহিলা স্বনির্ভর গোষ্ঠীর সভানেত্রী সন্ধ্যা প্রামানিক জানান, এলাকার যুবক এত বড় একটা ঘটনা ঘটানোর পরেও সে তার দোষ স্বীকার করছে না। বিষয়টি পুলিশকে জানিয়ে কিছু হয়নি। তাদের বক্তব্য, আগামীতে এলাকার কেউ যাতে এরকম ঘটনা না ঘটায় তাই এদিন ওই দু’জনের গলায় জুতার মালা পরিয়ে এলাকা ঘোরানো হয়েছে।’

অভিযুক্ত যুবক বলেন, ‘ওই মহিলার সঙ্গে ফোনে কথা হত। তাই দু’জনের মধ্যে একটা সম্পর্ক তৈরি হয়। আমরা চাইছিলাম ওই সম্পর্ক থেকে বেরিয়ে আসতে। কিন্তু হঠাৎ করে গত শনিবার রাতে ওই মহিলা আমার বাড়িতে এসে পৌঁছোয়। জানায়, আমাদের দু’জনকে তিনদিনের মধ্যে এলাকা ছাড়ার নিদানের কথা। গতকাল ছিল তার শেষ দিন। আমরা কোনো সিদ্ধান্ত নেওয়ার আগেই এলাকার কিছু মহিলা আমাদের মুখে কালি মাখিয়ে, জুতার মালা পরিয়ে এলাকা ঘোরায়। মহিলাদের এমন কান্ড মেনে নিতে পারছি না।’

অপরদিকে, ওই মহিলার স্বামী জানান, আমি কাজের জন্য ভিন রাজ্যে থাকি। স্ত্রী’র এমন ঘটনার কথা শুনে দু’দিন আগে বাড়িতে এসেছি। এর আগেও স্ত্রী’র সঙ্গে ওই সিভিক ভলান্টিয়ারের অবৈধ সম্পর্কের বিষয়টি থানায় অভিযোগ জানানো হয়েছিল। কিন্তু কোন কাজ হয়নি।’ বৃহস্পতিবার তিনি অভিযোগ জানাতে থানায় যান। সেসময় এলাকার মহিলারা কি ঘটিয়েছেন তা তিনি জানেন না বলে জানিয়েছেন।

ঘোকসাডাঙ্গা থানার ওসি দেবাশিষ রায় বলেন, ‘ফুলবাড়ির ওই এলাকায় একটা সমস্যা তৈরি হয়েছিল। কাউকে গলায় জুতার মালা দিয়ে রাস্তায় ঘোরানোর বিষয়টি আমার জানা নেই। দু’জনকেই থানায় নিয়ে আসা হয়েছে। এবিষয়ে কোন পক্ষই এখনও লিখিত অভিযোগ করেনি। অভিযোগ পেলে আইন মেনে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’