সোনাদায় মোর্চার দুই গোষ্ঠীর সংঘর্ষ

65

শিলিগুড়ি: ভোট মিটতেই উত্তপ্ত হচ্ছে পাহাড়। সোমবার রাতে গোর্খা জনমুক্তি মোর্চার দুই গোষ্ঠীর মধ্যে সংঘর্ষ হয়। এই ঘটনায় দুপক্ষেরই বেশ কয়েজন জখম হয়েছেন বলে জানা গিয়েছে। দুপক্ষই এই ঘটনার দায় একে অপরের বিরুদ্ধে চাপিয়েছে। বিমল গুরুংয়ের দাবি,  বিনয় তামাংপন্থীরা পূর্ব পরিকল্পিতভাবে তাঁর ওপর হামলা চালিয়েছেন। এই ঘটনায় তাঁর কয়েকজন কর্মী জখম হয়েছেন। অন্যদিকে, বিনয় তামাংদের দাবি, বিমল গুরুং এবং তাঁর সাগরেদরা সোনাদায় দলের নেতার ওপর হামলা করেছেন। এই ঘটনায় মহেন্দ্র প্রধান নামে একজন গুরুতর জখম হয়েছেন। এই ঘটনার পরই জেলা পুলিশ সতর্কতামূলক ব্যবস্থা নিয়েছে। পুলিশ জানিয়েছে, ঘটনার তদন্ত চলছে।

বিনয় তামাং এই ঘটনার পর রাতে এক প্রেস বিবৃতি দিয়ে জানিয়েছেন, ‘রবিবার রাতে পেশকে দলের এক নেতার গাড়ি ভাঙচুর করেছেন বিমলের লোকজন। ওই রাতেই পাতলেবাসে কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য দীনেশ থিংয়ের বাড়ির গ্যারেজ ভাঙচুর করা হয়েছে। প্রশাসন এই ঘটনাগুলির বিরুদ্ধে কোনও ব্যবস্থা নেয়নি। এরই মধ্যে সোমবার রাতে সোনাদায় বিমল গুরুংয়ের লোকজন আমাদের দলের নেতা মহেন্দ্র প্রধানের ওপর হামলা করেন। তাঁকে গুরুতর আহত অবস্থায় হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়েছে।‘ বিনয়ের অভিযোগ, গত সাড়ে তিন বছর পাহাড়ে কোনও গণ্ডগোল হয়নি। বিমল পাহাড়ে ফেরায় নতুন করে দার্জিলিং অশান্ত হতে শুরু করেছে। বিমল সহ তাঁর দলের প্রচুর নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে ওয়ারেন্ট থাকলেও তাঁরা কিভাবে প্রকাশ্যে ঘুরে বেড়াচ্ছেন তা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন বিনয়। পাহাড় আবার অশান্ত হলে তার দায় শুধু বিমল গুরুং নন, রাজ্য সরকারকেও নিতে হবে বলেও মন্তব্য করেছেন তিনি।

- Advertisement -

অন্যদিকে, রাতে এক ভিডিও বার্তায় বিমল গুরুং দাবি করেছেন, তিনি এদিন সোনাদায় একটি কর্মসূচিতে যোগ দিতে গিয়েছিলেন। সেখানেই বিনয়পন্থীরা পূর্বপরিকল্পিতভাবে তাঁর উপরে হামলা করে। মহেন্দ্র প্রধানের নেতত্বেই এই হামলা হয়েছে বলে বিমলের অভিযোগ। তাঁর কনভয়ে থাকা বেশ কয়েজন আহত হয়েছেন বলে বিমল দাবি করেছেন।

তাঁর অভিযোগ, ‘বিরোধী শিবির মিথ্যা গল্প সাজিয়ে উলটে আমাকে দোষারোপ করছে। আমি অশান্তির পক্ষে নই।‘ মানুষ যেন কোনও গুজবে কান না দেন সেই আবেদন করেছেন বিমল। ঘটনার পরেই বিমল সরাসরি পাতলেবাসের বাড়িতে পৌঁছেছেন।

এদিকে মোর্চার দুই গোষ্ঠীর মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনার পরেই কার্সিয়াং এবং দার্জিলিংয়ে পুলিশি সতর্কতা বেড়েছে। গণ্ডগোলের আশঙ্কায় পাতলেবাস, সিংমারি, কার্সিয়াং, সোনাদায় বাড়তি পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।