কাজের টাকা নিয়ে গোলমাল, ছেলেকে বাঁচাতে গিয়ে জখম বৃদ্ধা

515

ধূপগুড়ি,৭ অক্টোবর : ওভারব্রিজের কাজের দখল নিয়ে এবার রাতের অন্ধকারে এক বৃদ্ধাকে মারধরের অভিযোগ উঠল কয়েকজনের বিরুদ্ধে। তবে এই ঘটনায় ইতিমধ্যেই রাজনৈতিক রং লেগেছে। ঘটনায় বৃদ্ধার ছেলে ইতিমধ্যেই ধূপগুড়ি থানায় লিখিতভাবে ১২ জনের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করেছেন। বৃদ্ধা গিরিবালা রায় আশঙ্কাজনক অবস্থায় উত্তরবঙ্গ মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, ভেমটিয়া এলাকায় রেলের ওভারব্রিজে দিনমজুরের কাজ করেন গিরিবালা রায়ের ছেলে মোহন রায়। তাঁর অভিযোগ, কাজের থেকে পাওয়া টাকার ভাগ চাইছিল অভিযুক্তরা। কিন্তু ভাগ দিতে অস্বীকার করায় অপরপক্ষ তাঁকে মারার সুযোগ খুঁজছিল। প্রায় এক মাস ধরে দু-পক্ষের মধ্যে চাপা উত্তেজনা ছিল। রবিবার রাতে গিরিবালা রায়ের বাড়ির সামনে মোহনকে মারধর করে অভিযুক্তরা। ছেলেকে বাঁচাতে যেতেই দুষ্কৃতীদের ছোঁড়া ঢিল গিরিবালাদেবীর মাথায় লাগে। ঢিলের আঘাতে পড়ে যেতেই বৃদ্ধাকে আরো মারধর করা হয়।এমনকি মোহন রায়ের স্ত্রীকেও শ্লীলতাহানি করার অভিযোগ উঠেছে অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে।

ঘটনাকে কেন্দ্র করে রাজনৈতিক চাপানউতোর সৃষ্টি হয়েছে। আহতপক্ষের দাবি, তারা তৃণমূল কংগ্রেস করে। অভিযুক্তরা বিজেপি-র মদতপুষ্ট। কাজের দখল এবং দিনমজুরির টাকার ভাগ নিয়ে এলাকায় ঝামেলা চলছেই। এদিকে পুলিশও অভিযোগ দায়ের হবার পরই ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে। রবিবার রাতে গুরুতর জখম বৃদ্ধাকে পুলিশের চেষ্টাতেই জলপাইগুড়ি সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়। অভিযুক্তদের মধ্যে এক ব্যক্তি বলেন, বাড়ি যাবার পথে মোহন রায়ই বাধা দেয় এবং কুড়ুল নিয়ে মারতে আসে। তখনই গোলমাল হয়। মোহন নিজেও ঢিল ছুড়েছে। বৃদ্ধা কার ঢিলে আহত হয়েছে তা নিয়ে প্রশ্ন রয়েছে। ধূপগুড়ি থানার আইসি সুবীর কর্মকার বলেন, অভিযোগের ভিত্তিতে ঘটনার তদন্ত শুরু হয়েছে।

- Advertisement -

ছবি- আহত গিরিবালা রায়।

ছবি ও তথ্য- শুভাশিস বসাক