ওয়েব ডেস্ক, ২৮ মে : নিজের  খাসতালুক সহ তুফানগঞ্জের একাধিক জায়গায় বারবার বিক্ষোভের মুখে পড়লেন মন্ত্রী রবীন্দ্রনাথ ঘোষ। এমনকী মন্ত্রীর কনভয়কে বার করতে গিয়ে ক্ষিপ্ত জনতা ও বিজেপি কর্মীদের সঙ্গে সংঘর্ষে জখম হলেন অন্তত ১০ জন পুলিশকর্মী। তাঁরা সকলেই তুফানগঞ্জ হাসপাতালে ভরতি।  লোকসভা নির্বাচনের পর একাধিক জায়গায় দলের পার্টি অফিস বন্ধ হয়ে গিয়েছে, এমন খবর পেয়ে মন্ত্রী এদিন প্রথমে ডাউয়াগুড়িতে যান। সেখানে তৃণমূলের কার্যালয়ে বিজেপির পতাকা দেখে মন্ত্রী উত্তেজিত হয়ে তা খুলতে গেলে তাঁকে ঘিরে বিক্ষোভ শুরু হয়। এরপর মারুগঞ্জেও বিক্ষোভের মুখে পড়েন মন্ত্রী।  সেখান দিয়ে মন্ত্রীর কনভয় যাওয়ার সময় জাতীয় সড়ক আটকে বিক্ষোভ দেখাতে থাকে বিজেপি কর্মীরা। তুমুল বিক্ষোভের মধ্যে থেকে মন্ত্রীকে উদ্ধার করে তাঁর কনভয় বের করতে গিয়ে জনতার সঙ্গে ধস্তাধস্তিতে জড়িয়ে পড়ে পুলিশ।  পুলিশ এখানে লাঠিচার্জ করলে পরিস্থিতি আরও ঘোরাল হয়ে ওঠে।  ক্ষিপ্ত জনতা পুলিশের গাড়ি ভাঙচুর করে। পরে তুফানগঞ্জের এসডিপিও জাম ইয়ং জিম্বা, কোচবিহার সদর সিআই দেবাশিস বসু সহ পদস্থ পুলিশ কর্তারা ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনেন। গত কয়েকদিন ধরেই সংঘর্ষে উত্তপ্ত হয়ে রয়েছে তুফানগঞ্জ। এদিনের ঘটনায় গোটা এলাকা থমথম করছে।

ছবি- মারুগঞ্জে ভাঙচুর হওয়া পুলিশের গাড়ি।