কয়লাপাচারের তদন্ত যাচ্ছে সিবিআইয়ের হাতে

255

কলকাতা: আয়কর দপ্তরের হাত থেকে কয়লাপাচার তদন্তের ভার হাতে নিতে চলেছে কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থা সিবিআই। এপর্যন্ত তদন্তের সমস্ত নথি আয়কর দপ্তরের কাছ থেকে চেয়ে পাঠিয়েছে সিবিআই। সারদা মামলার দায়িত্বে থাকা সিবিআই অফিসারদের কলকাতায় ডাকা হয়েছে। পরিস্থিতি দেখে ওয়াকিবহাল মহলের ধারণা ২০২১ এর নির্বাচনের আগে সারদা ও কয়লাপাচার তদন্তে গতি আনতে চাইছেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শা।

সেই জন্যই বৈঠক করে কলকাতার সিবিআই অফিসারদের তদন্তের গতিপ্রকৃতি নিযে আলোচনার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। এতদিন কয়লাপাচার কাণ্ডে আয়কর দপ্তরই তদন্ত করছিল এমনকি খোদ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজ্যে থাকাকালীনই আসানসোল, জামুরিয়া ও রানিগঞ্জের বিভিন্ন জায়গায় আয়কর দপ্তর অভিযান চালায়। তা নিয়ে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় যথেষ্ট ক্ষোভ প্রকাশ করেছিল। তির্যক মন্তব্য করে বলেছিলেন, কী প্ল্যানিং বাপরে বাপ। কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী পালটা বলেন, কয়লা বিক্রির টাকার ভাগ রাজ্য সরকারের কোষাগারেও যায়। কাজেই চোর ধরলে মমতা দিদির এত রাগ কেন?

- Advertisement -

সিবিআই সূত্রে জানা গিয়েছে, তদন্তকারীরা কয়লাপাচার কাণ্ডে অনুপ মাঝি ওরফে লালার ওপর নজর রাখছেন। বাঁকুড়ার আরেক বাসিন্দাও নজরে রয়েছেন। রাজ্যের বিরোধী রাজনৈতিক দলের বক্তব্য, ওই দুজনই শাসকদলের নেতা-নেত্রীদের ঘনিষ্ঠ। সিবিআইও মনে করে কয়লা পাচার কাণ্ডের শিকড় অনেক গভীরে। দেশের বাইরে ব্যাংক অ্যাকাউন্টেও টাকা গিয়েছে বলে মনে করা হচ্ছে। একই দিনে ও সময়ে কলকাতা, মালদা ও মুর্শিদাবাদে গোরুপাচারের ব্যাপারেও হানাদারি চালায় সিবিআই। গোরুপাচারে মূল অভিযুক্ত এনামুলকে গ্রেপ্তার করা হয়। কয়লাপাচারে গোরু পাচারকারীদের সরাসরি সাহায্য নেওয়া হয়েছে। এই দুই কাণ্ডের মাথাদের মধ্যে যোগ রয়েছে বলে অনুমান গোয়েন্দাদের।