সহকর্মীকে কুপ্রস্তাব দেওয়ার অভিযোগ তৃণমূল নেত্রীর ছেলের বিরুদ্ধে

285

কালচিনি: সহকর্মীকে কুপ্রস্তাব দেওয়ার অভিযোগ উঠল কালচিনি ব্লক তৃণমূল কংগ্রেসের এক নেত্রীর ছেলের বিরুদ্ধে। ঘটনাকে কেন্দ্র করে সোমবার উত্তেজনা ছড়ায় কালচিনি ব্লকের চুয়াপাড়া গ্ৰাম পঞ্চায়েতে।

ওই গ্ৰাম পঞ্চায়েতের সেক্রেটারি পদে কর্মরত ও আলিপুরদুয়ার জেলা পরিষদের পূর্ত কর্মাধ‍্যক্ষ পদ্মা রায়ের ছেলে বিশ্বজিৎ বিশ্বাসের বিরুদ্ধে ওই গ্ৰাম পঞ্চায়েতের ভিএলই পদে কর্মরত এক মহিলা কর্মীর অভিযোগ, বিশ্বজিৎ বিশ্বাস তাঁকে দীর্ঘদিন ধরে কুপ্রস্তাব দিচ্ছেন। তাঁকে প্রলোভন দেখিয়ে তাঁর সঙ্গে অবৈধ সম্পর্ক স্থাপনের চেষ্টা করেছেন বলে মহিলার অভিযোগ।

- Advertisement -

সোমবার ঘটনার কথা গ্ৰাম পঞ্চায়েতের মহিলা সদস্যদের জানালে গ্ৰাম পঞ্চায়েত দপ্তরে উত্তেজনা ছড়ায়। স্থানীয় বাসিন্দারাও ঘটনার তীব্র প্রতিবাদ জানান। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছান তৃণমূলের আলিপুরদুয়ার জেলার নেতা পাসাং লামা। তাঁর হস্তক্ষেপে পরিস্থিতি কিছুটা স্বাভাবিক হয়। খবর পেয়ে কালচিনি থানার পুলিশ গ্ৰাম পঞ্চায়েত দপ্তরে পৌঁছায়। অভিযোগকারী ওই মহিলা কালচিনি থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন। কালচিনি থানার পুলিশ জানিয়েছে, অভিযোগের ভিত্তিতে ঘটনার তদন্ত শুরু হয়েছে।

তৃণমূলের যুব নেতা পাসাং লামা বলেন, ‘কর্মক্ষেত্রে মহিলার সঙ্গে অশালীন আচরণ মানা যায় না। আমরা ঘটনার তদন্তের দাবি ক‍রছি।’ এলাকার পঞ্চায়েত সমিতির সদস‍্য উষা লামা বলেন, ‘বিষয়টি তৃণমূলের জেলা ও ব্লক নেতৃত্বকে জানিয়েছি। সেক্রেটারি এমন কাজ করে থাকলে তাঁর বিরুদ্ধে উপযুক্ত শাস্তির দাবি জানাবো।’ কালচিনির বিডিও ভূষণ শেরপা বলেন, ‘ওই মহিলা ব্লক প্রশাসনকে অভিযোগ জানালে ব্লক প্রশাসন কর্মক্ষেত্রে মহিলাদের যৌন হেনস্তা কমিটিকে বিষয়টি নিয়ে তদন্ত ক‍রতে বলবে।’

এদিকে, ঘটনার বিষয়ে ওই মহিলা তাঁকে কোনও অভিযোগ জানাননি বলে দাবি করেন গ্ৰাম পঞ্চায়েতের প্রধান ভগবতী ওরাওঁ। তিনি বলেন, ‘আমি বাইরে আছি। ফিরে গিয়ে খোঁজ নেব।’ তৃণমূলের কালচিনি ব্লক সভাপতি অসীম মজুমদার বলেন, ‘অভিযোগ প্রমাণিত হলে আইন আইনের পথে চলবে।’

জেলা পরিষদের পূর্ত কর্মাধ‍্যক্ষ পদ্মা রায় বলেন, ‘ওই মহিলা উদ্দেশ্যপ্রণোদিত হয়ে এমন অভিযোগ করেছেন। পুলিশি তদন্তে অভিযোগ প্রমাণিত হলে পুলিশ তার ব‍্যবস্থা নেবে।’

অন‍্যদিকে, অভিযুক্ত বিশ্বজিৎ বিশ্বাস বলেন, ‘সম্প্রতি ওই মহিলার বদলির নির্দেশিকা আসে। মহিলার ধারণা প্রধান ও তাঁর যোগসাজসে মহিলার বদলি হয়েছে। তিনি তাঁর বদলি ঠেকানোর জন‍্যেই তাঁর প্রধানের বিরুদ্ধে এমন অভিযোগ এনেছেন।’ বিশ্বজিৎবাবু বলেন, ‘যদি দীর্ঘদিন আগে থেকেই এমন কাজ করে থাকি তবে এতদিন পর কেন তিনি অভিযোগ ক‍রলেন। তাই মহিলার অভিযোগ সম্পূর্ণ ভিত্তিহীন ও উদ্দেশ্যপ্রণোদিত বলে জানিয়েছেন গ্ৰাম পঞ্চায়েতের সেক্রেটারি।