ট্রলিম্যানদের দৌরাত্ম্যে নাভিশ্বাস উঠছে রোগীর পরিজনদের

40

রায়গঞ্জ: দালালরাজে ইতি টানতে মুখ্যমন্ত্রী কড়া পদক্ষেপের কথা বললেও বাস্তবে তার কোনও প্রতিফলন নেই রায়গঞ্জ মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে। অভিযোগ, রায়গঞ্জ মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে একাংশ প্রভাবশালীর মদতে বহিরাগত ট্রলিম্যানরা রোগীর পরিজনদের থেকে মোটা টাকা আদায় করছে। বিশেষ সূত্রের খবর, অতীতে রোগীদের ট্রলিতে চাপিয়ে নিয়ে যাওয়া আসার জন্য পরিবারে সদস্যদের থেকে ২০০ টাকা করে আদায় করলেও করোনার আবহে দালালদের দর আকাশ ছুঁয়েছে। বর্তমানে আদায় করা হচ্ছে ৪০০ থেকে ৬০০ টাকা।

হাসপাতালে চিকিৎসক, নার্স এবং স্বাস্থ্য কর্মী থাকলেও বহিরাগত ট্রলিম্যান থেকে শুরু করে আয়া এবং বিভিন্ন ভুঁইখোর প্যাথলজিক্যাল ল্যাবরেটরির টেকনিশিয়ানরাও নিজেদের রুটিরুজি বহাল তবিয়তে চালিয়ে যাচ্ছে। সবার জন্যই গুনতে হচ্ছে রোগীর পরিজনদের মোটা অংকের টাকা। ফলে নিখরচায় চিকিৎসা অমিল রায়গঞ্জ মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে। কতদিন চলবে এই দালালচক্রের দাদাগিরি? ভুক্তভোগী রোগীর পরিজনেদের অভিযোগ, প্রশাসন নামে এখানে কিছু আছে বলে মনে হয় না। এর পেছনে রয়েছে এক প্রভাবশালীর হাত। যাকে ভয় পায় চিকিৎসক-নার্স থেকে শুরু করে প্রশাসনেরও অনেক কর্তা। ’রায়গঞ্জ মেডিকেল কলেজের নোডাল অফিসার বিপ্লব হালদার বলেন, ‘বিষয়টি নজরে রয়েছে। ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে।’ যদিও এবিষয়ে মন্তব্য করতে নারাজ রায়গঞ্জ মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ সহ সহকারি অধ্যক্ষ।

- Advertisement -