স্বাস্থ্যসাথী কার্ড থাকা সত্ত্বেও মোটা টাকা দাবি! কাঠগড়ায় নার্সিংহোম

104

বর্ধমান: ‘স্বাস্থ্যসাথী কার্ড’ কার্ড দেখানোর পরেও চিকিৎসার খরচ বাবদ ৪৩ হাজার টাকা দাবি করার অভিযোগ উঠল বর্ধমানের নবাবহাট এলাকার একটি নার্সিংহোমের বিরুদ্ধে। ঘটনার প্রেক্ষিতে পুলিশ তৎপর হতেই ভোল বদলায় নার্সিংহোম কর্তৃপক্ষ। শেষ অবধি ৪০ হাজারের বদলে ৫ হাজার টাকা আদায় করা হয় বলে অভিযোগ রোগীর পরিজনের। ঘটনা প্রসঙ্গে পূর্ব বর্ধমানের জেলাশাসক প্রিয়াঙ্কা সিংলাকে অভিযোগ জানান রোগীর পরিজনেরা। ঘটনায় ক্ষোভ প্রকাশ করে তদন্তের কথা স্পষ্ট করেছেন তিনি। যদিও নার্সিংহোম কর্তৃপক্ষের দাবি, কারও উস্কানিতে মিথ্যা অভিযোগ করেছে রোগী পরিবার।

পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, মেমারির রাধাকান্তপুরে বাসিন্দা বছর ৫২ বয়সী তরু ক্ষেত্রপাল গত মঙ্গলবার দুর্ঘটনার কবলে পড়ে জখম হন। পরিবারের তরফে তাঁকে মেমারি হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলে চিকিৎসকরা তাঁকে বর্ধমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার করেন। কিন্তু অ্যাম্বুল্যান্স চালক রোগীকে বর্ধমান মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালের পরিবর্তে ওই নার্সিংহোমে ভর্তি নিয়ে যান। সেখানেই চিকিৎসাধীন ছিলেন তিনি। পরবর্তীতে এদিন নার্সিংহোমের তরফে রোগীকে ছুটি দেওয়ার সময় ৪০ হাজার টাকা দাবি করা হয় বলে অভিযোগ ওঠে।

- Advertisement -

এবিষয়ে তরু ক্ষেত্রপালের মেয়ে অরুন্ধুতী দাসের বক্তব্য, স্বাস্থ্যসাথীর কার্ড দেখে নার্সিংহোম কর্তৃপক্ষ তাঁর বাবাকে ভর্তি নিয়েছিল। তারপরেও কীভাবে এত টাকা দাবি করে। অন্যদিকে রোগীর ছেলে বসন ক্ষেত্রপাল বলেন, ‘স্বাস্থ্যসাথী’ কার্ড দেখানো সত্ত্বেও নার্সিংহোম কর্তৃপক্ষ অন্যায়ভাবে ৫ হাজার টাকা আদায় করেছে।’

অভিযোগ প্রসঙ্গে নার্সিংহোমের অংশীদার তথা চিকিৎসক কৌশিক দাস বলেন, ‘ওই রোগীকে অ্যাম্বুল্যান্সে করে নিয়ে আসা হয়েছিল। তাঁর ৪৩ হাজার টাকা বিল হয়। ৫ হাজার টাকা দিয়েছে রোগীর পরিজনরা। একইসঙ্গে কৌশিকবাবু জানান, তাঁদের নার্সিংহোম স্বাস্থ্যসাথী কার্ডে চিকিৎসা করার অনুমতি পায়নি। কেউ উস্কানি দিয়ে এইসব মিথ্যা অভিযোগ করাচ্ছে।

সিএমওএইচ প্রণব রায় বলেন, ‘আমার কাছে এখনও অভিযোগ আসেনি। অভিযোগ পেলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’