ইটাহারে জোটে জট, সংযুক্ত মোর্চার প্রার্থী বদলের দাবি কংগ্রেস কর্মীদের

149

দীপঙ্কর মিত্র, রায়গঞ্জ: সংযুক্ত মোর্চার প্রার্থী নিয়ে ক্ষোভ ছড়াল ইটাহারে। ইটাহারের কংগ্রেস কর্মীরা সংযুক্ত মোর্চার সহযোগী সিপিআই প্রার্থীকে মানতে নারাজ। তাঁদের দাবি, ইটাহারে কংগ্রেস প্রার্থী দিতে হবে। কারণ সেখানে সিপিআইয়ের কোনও সংগঠন নেই। বরং সাংগঠনিকভাবে শক্তিশালী কংগ্রেস। এদিন রায়গঞ্জে জেলা কংগ্রেস কার্যালয়ে শতাধিক কংগ্রেস কর্মী-সমর্থক প্রার্থী বদলের দাবিতে অবস্থানে বসেন। বিকেল পর্যন্ত চলে অবস্থান-বিক্ষোভ।

অন্যদিকে, এদিন রায়গঞ্জের সংযুক্ত মোর্চার প্রার্থী কংগ্রেসের মোহিত সেনগুপ্তের সমর্থনে বাম-কংগ্রেস ও আইএসএফের কর্মীসভা হয়। সেখানে মোহিতবাবু ছাড়াও সিপিএমের জেলা সম্পাদক অপূর্ব পাল, ইটাহারের সিপিআই প্রার্থী শ্রীকুমার মুখোপাধ্যায়, ফরওয়ার্ড ব্লকের জেলা সম্পাদক গোকুলবিহারী রায় সহ অন্যরা উপস্থিত ছিলেন। কর্মীসভায় কংগ্রেসের পাশাপাশি বাম কর্মী-সমর্থকদের উপস্থিতি ছিল চোখে পড়ার মতো।

- Advertisement -

আন্দোলনরত কংগ্রেস কর্মীদের দাবি, তাঁরা দীর্ঘদিন ধরে জেলা নেতৃত্বের কাছে ইটাহারে এবার কংগ্রেস প্রার্থী দেওয়ার দাবি জানিয়ে আসছিলেন। জেলা নেতৃত্ব তাঁদের সেই দাবি পূরণের আশ্বাস দিয়েছিলেন। কিন্ত ইটাহারে কাকে প্রার্থী করা হচ্ছে, তা নিয়ে জেলা নেতৃত্ব পরবর্তীতে তাঁদের সঙ্গে কোনও আলোচনা করেননি। তাঁরা হঠাৎ জানতে পারেন, দুবারের পরাজিত সিপিআই প্রার্থী শ্রীকুমার মুখোপাধ্যায়কে এবারও প্রার্থী করা হয়েছে। অথচ ইটাহারে ওদের কোনও সংগঠন নেই। প্রার্থীকে দেখা যায় না। আন্দোলনরত কংগ্রেস কর্মীরা জানান, ইটাহারে কংগ্রেস যথেষ্ট শক্তিশালী। বিজেপি ও তৃণমূলের বিরুদ্ধে একমাত্র লড়াই করতে পারবে কংগ্রেস। সিপিআইকে আসন ছেড়ে দিয়ে কোনওমতেই হারতে চান না তাঁরা।

ইটাহারের বাসিন্দা তথা কংগ্রেসের জেলা  সাধারণ সম্পাদক কামরুল হক বলেন, ‘জেলা কংগ্রেস নেতৃত্ব আমাদের আশ্বস্ত করেছিলেন, ইটাহারে কংগ্রেস প্রার্থী থাকবেন। কিন্তু টিভি দেখে জানতে পারি, ইটাহারে এবার সংযুক্ত মোর্চার প্রার্থী হচ্ছেন সিপিআইয়ের ড: শ্রীকুমার মুখোপাধ্যায়। কী কারণে শ্রীকুমারবাবুকে এবারও প্রার্থী করা হল, কংগ্রেসের জেলা নেতৃত্ব এ ব্যাপারে কোনও সদুত্তর দিতে পারেননি। তাই এদিন আমরা অবস্থানে বসেছি। যতক্ষণ না পর্যন্ত প্রদেশ কংগ্রেস নেতৃত্ব ইটাহারে কংগ্রেস প্রার্থীর নাম ঘোষণা করছেন, ততক্ষণ আমাদের আন্দোলন চলবে।‘

কংগ্রেসের জেলা সভাপতি মোহিত সেনগুপ্ত বলেন, ‘অনেক ত্যাগ স্বীকার করে বাম ও কংগ্রেস জোট করে লড়াই করছে। আমাদের প্রধান শত্রু ফ্যাসিস্ট তৃণমূল ও সাম্প্রদায়িক বিজেপি। তাই জোটবদ্ধভাবে এদের পরাস্ত করতে হবে। প্রার্থী নিয়ে ক্ষোভ থাকলে তা আলোচনা করে মিটিয়ে ফেলা হবে।‘

বামফ্রন্টের জেলা আহ্বায়ক অপূর্ব পাল বলেন, ‘জোট রাজনীতিতে সবাই সব আসনে প্রার্থী দিতে পারে না। তাই এক্ষেত্রে কংগ্রেস নেতৃত্ব দায়িত্ব নেবেন তাঁদের কর্মীদের বোঝানোর।‘

এদিকে, ইটাহার আসনে সংযুক্ত মোর্চার প্রার্থী নিয়ে যে ক্ষোভ তৈরি হয়েছে, তার ফায়দা তৃণমূল, বিজেপি তুলতে পারে কিনা সেটাই এখন দেখার।