বোলপুরে মেলার মাঠে প্রাচীর নির্মাণ শুরু

311

বোলপুর: পৌষমেলার মাঠে প্রাচীর নির্মাণ শুরু করল বিশ্বভারতী। আদালতের নির্দেশে এবং রাজ্য পুলিশের নিরাপত্তায় সোমবার থেকে কাজ শুরু হল।
প্রসঙ্গত, অসামাজিক কাজ এবং মোটরবাইকের দাপাদাপি রুখতে পৌষমেলার মাঠ প্রাচীর এবং ফেন্সিং দিয়ে ঘিরে ফেলার উদ্যোগ নেয় বিশ্বভারতী কর্তৃপক্ষ। সেই মতো ১৫ অগাস্ট থেকে কাজ শুরু হয়। প্রাচীরের বিরোধিতা করে আন্দোলন শুরু করেন প্রবীণ আশ্রমিক, প্রাক্তনী, বর্তমান ছাত্রছাত্রী ও ব্যবসায়ীরা। ১৭ অগাস্ট সকালে পতাকা ছাড়াই তৃণমূল বিধায়ক নরেশ বাউরির নেতৃত্বে বিশ্বভারতীর প্রাচীর বিরোধী একটা মিছিল বের করা হয়। সেই মিছিলে অধিকাংশই ছিলেন বহিরাগত। মিছিল প্রাচীরের কাছে পৌঁছাতেই শুরু হয় তাণ্ডব। ভাঙচুর করা হয় বিশ্বভারতীর একটি অস্থায়ী বাঁশ-কাপড়ের ছাউনি। পে-লোডার দিয়ে ভেঙে ফেলা হয় মেলার মাঠের প্রধান গেট। লুঠপাট করা হয় নির্মাণ সামগ্রী এবং সিমেন্ট। ঘন্টাখানেকের বেশি সময় ধর চলে তাণ্ডব।

সে সময় দেখা যায়নি কোনও পুলিশ আধিকারিক কিংবা কর্মীদের। এরপরই বিশ্বভারতী কর্তৃপক্ষ বিষয়টি নিয়ে হাইকোর্টে যায়। এরপর হাইকোর্টের চার সদস্যের একটি কমিটি তদন্ত শুরু করে। ২০ সেপ্টেম্বর কমিটির সদস্যরা তদন্তের জন্য বিশ্বভারতীতে আসেন। এরপর ফের ২৬ ও ২৭ সেপ্টেম্বর দু’বার তাঁরা তদন্তে আসেন। বিশ্বভারতী কর্তৃপক্ষ, আশ্রমিক, ব্যবসায়ীদের সঙ্গে বৈঠকে বসেন তাঁরা। তারপরই ভেঙে ফেলা গেট পুনরায় নির্মাণের নির্দেশ দেওয়া হয়। এবার শুরু হল প্রাচীর নির্মাণ। নিরাপত্তার দায়িত্বে রয়েছে পুলিশ।

- Advertisement -

যদিও এপিডিআর-এর শৈলেন মিশ্র বলেন, ‘আমরা প্রাচীর চাই না। প্রবীণ আশ্রমিকরাও একই মত জানিয়েছিলেন। জাতীয় পরিবেশ আদালতও প্রাচীরের বিপক্ষে। কিন্তু আদালত যেটা বলবে, সেটা সকলকে মেনে নিতে হবে।’ ব্যবসায়ীদের তরফে মঙ্গলবার থেকে আন্দোলনের ডাক দেওয়া হয়েছে। বিশ্বভারতীর ছাত্ররা জানিয়েছেন, পঠন পাঠন শুরু হলে ফের আন্দোলন শুরু করা হবে।