সাংবাদিকদের উদ্দেশ্যে ‘গুলি মারো’ বিতর্কে বিজেপি

85

বালুরঘাট: সাংবাদিকদের উদ্দেশ্যে করা বিজেপি নেতার ‘গুলি মারো’ মন্তব্য ঘিরে বিতর্ক ছড়িয়েছে বালুরঘাটে। ঘটনার প্রতিবাদে সরব হয়েছে সাংবাদিক মহল। যদিও ঘটনায় ওই বিজেপি নেতার তরফে ক্ষমা চেয়ে নেন বালুরঘাটের বিজেপি নেতা তথা সাংসদ সুকান্ত মজুমদার। তবে ভোটের মুখে বিজেপি নেতার এই মন্তব্য ঘিরে কিছুটা অস্বস্তিতে গেরুয়া শিবির।

শনিবার দুপুরে মহকুমা শাসকের দপ্তরে মনোনয়ন জমা দিতে যান বিজেপির প্রার্থীরা। সেখানে ছিলেন বিজেপির বালুরঘাট আসনের প্রার্থী অশোক লাহিড়ী, গঙ্গারামপুরের প্রার্থী সত্যেন্দ্রনাথ রায়, কুমারগঞ্জের মানস সরকার, তপনের বুধরাই টুডু। এছাড়াও প্রার্থীদের সঙ্গে উপস্থিত ছিলেন সাংসদ সুকান্ত মজুমদার। মনোনয়ন জমা দেওয়ার সময় ছবি তুলতে আসেন সাংবাদিকরা। তখনই এক বিজেপি নেতা সাংবাদিকদের উদ্দেশ্যে ‘গুলি মারো’ মন্তব্য করেন বলে অভিযোগ। যদিও ঠিক কে এই মন্তব্য করেছেন তা বোঝা যায়নি। ঘটনার পরই ক্ষোভে ফেটে পড়েন সাংবাদিকরা। বিষয়টি নিয়ে দু’পক্ষের মধ্যে বাকবিতণ্ডা বেধে যায়। পরে যদিও সাংসদ সুকান্ত মজুমদারের হস্তক্ষেপে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়। সাংবাদিকদের কাছে ক্ষমাও চেয়ে নেন সাংসদ। তিনি বলেন, ‘পিছন থেকে কেউ হয়তো এমনটা মন্তব্য করেছে। যাঁর রাজনৈতিক অপরিপক্কতা রয়েছে। এটা একদম অনুচিত হয়েছে। আমি দলের তরফে সাংসদ হিসেবে সকল সাংবাদিক বন্ধুদের কাছে ক্ষমা চেয়ে নিচ্ছি।’ সুকান্তবাবুর বক্তব্য, ‘গুলি মারো কথাটি হয়তো অন্যভাবে কিছু বলতে চেয়েছিলেন। এখানে ‘গুলি মারো’ বলতে বন্দুকের গুলি মারার সঙ্গে কোনও সম্পর্ক নেই। আমাদের স্থানীয় ভাষায় ‘গুলি মারো’ বলতে বোঝানো হয় যে, আপাতত এটা বাদ দিয়ে অন্য কাজ করো।’

- Advertisement -