ধর্ষণে অভিযুক্তের সঙ্গেই সম্পর্ক ছিল নির্যাতিতার,দাবি বিজেপি নেতার

956

লখনউ: হাথরসের ধর্ষণ, খুন নিয়ে প্রশ্ন তুললেন উত্তরপ্রদেশেরই এক বিজেপি নেতা। রবিবার ওই বিজেপি নেতা দাবি করেন, ধর্ষণে অভিযুক্তের সঙ্গে নির্র্যাতিতার সম্পর্ক ছিল। প্রেমিকের সঙ্গতে মারামারির জেরেই নির্যাতিতার মৃত্যু হয়েছে।

এদিকে উত্তরপ্রদেশের বালিয়ার বিজেপি বিধায়ক সুরেন্দ্র সিংহ ধর্ষণ বন্ধের উপায় বাতলে দিয়ে ইতিমধ্যে বির্তকে জড়িয়েছেন। তারপরেই ফের আর এক বিজেপি নেতার দাবি ঘিরে রাজনৈতিক মহল তোলপাড় শুরু হয়েছে গিয়েছে। নেট দুনিয়ায় বিজেপির বিরুদ্ধে ঘৃণা-মিম এ ভরিয়ে দিচ্ছেন।

- Advertisement -

শনিবার এক সাংবাদিকের প্রশ্নের উত্তরে বিজেপি বিধায়ক সুরেন্দ্র বলেন, “এটা সব মা-বাবার কর্তব্য তাঁদের মেয়েদের ভাল সংস্কার দেওয়া, একটা সাংস্কৃতিক পরিবেশে তাদের বড় করা। আমি একজন বিধায়ক হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে একজন শিক্ষক। ধর্ষণের মতো ঘটনা শুধুমাত্র সংস্কার দিয়েই থামানো যায়, শাসন বা তলোয়ার দিয়ে নয়। এটা আমার ধর্ম, সরকারের ধর্ম, কিন্তু পরিবারেরও ধর্ম। যখন সরকার সুরক্ষার জন্য প্রতিশ্রুতিবদ্ধ, তখন পরিবারও সন্তানদের মধ্যে ভাল সংস্কার তৈরি করার জন্য প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। সংস্কার ও সরকার মিলেই এক উজ্জ্বল দেশ তৈরি করতে পারবে। এছাড়া কোনও উপায় নেই।”

সুরেন্দ্র সিংহ ধর্ষণ বন্ধের উপায় বাতলে দেওয়ার পরে রবিবার উত্তরপ্রদেশের বারাবাঁকির বিজেপি নেতা রঞ্জিত বাহাদুর শ্রীবাস্তব নির্যাতিতার বিরুদ্ধে প্রশ্ন তোলেন। তিনি বলেন,”ঘাস কাটতে গিয়ে বাজরার ক্ষেতে কী করছিলেন নির্যাতিতা। অভিযুক্তের সঙ্গে সম্পর্ক ছিল নির্যাতিতার। প্রেমিকের সঙ্গে মারামারির জেরে মৃত্যু হয়েছে নির্যাতিতার। ধর্ষণের কোনো প্রমান মেলেনি। তারপরেও কেন ২৫ লক্ষ টাকার অর্থ সাহায্য দেওয়া হল? কেন জনগনের করের টাকায় বাড়ি বানিয়ে দেওয়া হবে?”।