লক্ষ্মীর রেশ কাটতে না কাটতেই ‘বেসুরো’ রথীন

233

কলকাতা: একুশে নির্বাচন এগিয়ে আসতেই বেসুরো গাইছেন একের পর এক তৃণমূল নেতা। মঙ্গলবার মন্ত্রীত্ব ও তৃণমূলের পদ ছেড়েছেন লক্ষ্মীরতন শুক্লা। এই রেশ কাটতে না কাটতেই এবার দলের বিরুদ্ধে কটাক্ষ করলেন হাওড়ার প্রাক্তন মেয়র রথীন চক্রবর্তী। এছাড়াও জেলায় দলের নেতৃত্বের একাংশের বিরুদ্ধে ক্ষোভ উগড়ে দেন তিনি।

বুধবার সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে রথীনবাবু বলেন, ‘যদি কোনও পুকুর কলুষিত হয়ে যায় সেখানে কোনও মাছ থাকতে পারে না। মাছ লাফিয়ে চলে যায়। তেমনই একটা ক্লাসে কিছু কিছু ছাত্র থাকে যারা নিজেরা পড়াশোনা করে না। অন্য কাউকেও পড়াশোনা করতে দেয় না। এই দলেও এখন সেরকম বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে। এটা কি প্রাইভেট লিমিটেড কোম্পানি নাকি, যেখানে আমি ছাড়া কাউকে অ্যালাউ করব না?’ তিনি আরও বলেন, ‘দলে এখন যথেষ্ট সৌজন্যের অভাব লক্ষ্য করা যাচ্ছে। কাজ করার মানুষরা ব্যাক সিটে চলে যাচ্ছে। কাজ করার মানুষদের কীভাবে কর্নার করা যায় সেটাই দলে চলছে।’ যদিও নিজের রাজনৈতিক অবস্থান নিয়ে স্পষ্টভাবে কিছু বলেননি রথীনবাবু।

- Advertisement -

পদ্মপুকুরে নতুন জল প্রকল্পের অনুষ্ঠানে প্রাক্তন মেয়র হিসেবে রথীনবাবুকে আমন্ত্রণ জানানো হয়নি। যা নিয়ে দলের মধ্য়েই বিতর্কের সৃষ্টি হয়েছে। এ প্রসঙ্গে রথীনবাবু বলেন, ‘মেয়র থাকাকালীন মানুষের জন্য কাজ করেছি এটা সবাই জানে। পুরসভায় তৃণমূল কংগ্রেস পরিচালিত বোর্ড আসার আগে পদ্মপুকুরের জল সরবরাহের কি অবস্থা ছিল, সেটাও সবাই জানে। আমরা নিজেরা উদ্যোগ নিয়ে সেই সমস্যার সমাধান করেছি। গতকালের অনুষ্ঠানে আমাকে আমন্ত্রণ জানানো হলে আমার উপস্থিতি সেই স্থানকে অপবিত্র করত বলে আমার মনে হয় না। আসলে দলে সৌজন্যের অভাব একদম প্রকট হয়ে উঠেছে।’