মুখ্যমন্ত্রীর ভাঙা পা দোলানোর ভিডিওয় বিতর্ক

87
ভাঙা পা নিয়েই ভোটের ময়দানে মুখ্যমন্ত্রী।

কলকাতা: নন্দীগ্রামে ভোট বিতর্কের পর শুক্রবার নতুন করে বিতর্ক ছড়াল এক ভাইরাল ভিডিওকে কেন্দ্র করে। সোশ্যাল মিডিয়ায় বিজেপির তরফে আপলোড করা ওই ভিডিওয় দেখা যাচ্ছে, মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় হুইলচেয়ারে বসে তাঁর ভাঙা পা দোলাচ্ছেন। এমনকি তাঁর সুস্থ পা-টি তুলে ভাঙা পায়ের ওপর রাখছেন। উত্তরবঙ্গ সংবাদ অবশ্য ওই ভিডিওর সত্যতা যাচাই করেনি। বিজেপির দাবি, ভিডিওটি রেকর্ড  করা হয়েছে তৃণমূলের নন্দীগ্রাম দলীয় কার্যালয়ে কোনও দলীয় কর্মীই ওই ভিডিও করেছেন। শুক্রবার সকাল থেকেই ওই ভিডিও ছড়িয়ে পড়ে। এদিন বিকালে সেটি ফেসবুকে পোস্ট করেন রাজ্য বিজেপির মুখপাত্র প্রণয় রায়।

প্রণয়বাবু বলেন, আমরা প্রথম থেকেই বলছিলাম, গোটা ঘটনাটিই নাটক। মমতা নিজেই তা প্রমাণ করে দিলেন। হুইলচেয়ার নিয়ে ঘুরলেও ব্যথা লাগা পা উনি দিব্যিই নাচাচ্ছেন। ভাঙা পায়ে ওপর কখনও অন্য পা চাপানো যায় না। অথচ ভিডিওতে ওঁকে তা করতে দেখা গিয়েছে। বর্ষীয়ান তৃণমূল নেতা সুব্রত মুখোপাধ্যায় বলেন, ওরা কুৎসা করে। এটা অমানবিক। সবকিছুই জোচ্চুরি আর জালিয়াতি। ভিডিওটি আমি দেখিনি। তবে শুনেছি, বাঁ-পায়ে ভাঙা জায়গায় নয়, ডান পা-টি উনি অন্য জায়গায় রেখেছেন। পালটা প্রণয়বাবুর মন্তব্য, নন্দীগ্রামের বুথে মাননীয়া অনেক নাটক করেছেন। তাঁকে তখন বেশ ক্লান্ত দেখাচ্ছিল। কিন্তু তারপর যেই পার্টি অফিসে তিনি ঢুকলেন, তাঁকে হাসতে হাসতে চায়ের আসর জমাতে দেখা যাচ্ছে। চোখে-মুখে কোনও কষ্টের ছাপ নেই। তাঁর দাবি, আগেই সংবাদমাধ্যমকে বলেছিলাম, নন্দীগ্রামে ভোট মিটে গেলে সহানুভতি পাওয়ার অভিনয় শেষ হয়ে যাবে। অভিনয় উনি করতেই পারেন। কিন্তু পুলিশ বা নিরাপত্তারক্ষীর চাকরি করতে আসা লোকেদের দিয়ে হুইলচেয়ার ঠেলানো ঠিক নয়।

- Advertisement -