টানা ১৭ ঘন্টা পড়ে রইল করোনা আক্রান্তের দেহ

212
প্রতীকী ছবি

কলকাতা: করোনা আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুর টানা ১৭ ঘণ্টা পরও মৃতদেহ পড়ে রইল এলাকায়। টনক নড়েনি পুলিশ প্রশাসনের। ঘটনাকে কেন্দ্র করে বৃহস্পতিবার উত্তাল হয়ে ওঠে উত্তর কলকাতার উল্টোডাঙ্গার অরবিন্দ সরণিতে। এরপরই নড়েচড়ে বসে পুলিশ প্রশাসন।

জানা গিয়েছে, সাতদিন ধরে জ্বরে আক্রান্ত ছিলেন মিষ্টির দোকানের মালিক ওই ব্যক্তি। গত মঙ্গলবার তাঁর করোনা পরীক্ষা হয়। পরীক্ষার রিপোর্ট পজিটিভ আসে। বুধবার বিকেলে এলাকায় নিজের দোকানেই তাঁর মৃত্যু হয়। তারপর সেই মৃতদেহ দোকানেই পড়ে থাকে। সংক্রমণ ছড়াতে পারে, এই ভয়ে কেউ এগিয়ে আসেনি। খবর পেয়ে স্থানীয়রা পুলিশকে বিষয়টি জানান। কিন্তু পুলিশের তরফে কোনো ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি বলে অভিযোগ। এর জেরে এদিন সকালে ক্ষুব্ধ স্থানীয় বাসিন্দারা রাস্তায় নেমে বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করেন। বিক্ষোভের জেরে নড়েচড়ে বসে পুলিশ প্রশাসন। পরে পুলিশের তরফে মৃতদেহ নিয়ে যাওয়া হয়। তবে এখনও পর্যন্ত এলাকাকে জীবাণুমুক্ত করা হয়নি বলে অভিযোগ। এদিকে এলাকায় করোনা সংক্রমণের আশঙ্কা উড়িয়ে দিচ্ছেন না এলাকাবাসী।

- Advertisement -

অন্যদিকে, কলকাতার আমর্হাস্ট স্ট্রিট এলাকায়ও এমন ঘটনায় চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে। পরিবারের লোকেদের দাবি বিভিন্ন জায়গায় জানিয়েও কোনো উপায় না পেয়ে অবশেষে বাড়িতেই ফ্রিজারে করোনা আক্রান্তের দেহ রেখে দেন। যদিও পরেও কলকাতা পুরসভার তরফে দেহ উদ্ধারের উদ্যোগ নেওয়া হয়। এদিকে গতকাল মধ্য কলকাতার মুচিপাড়া থানার লাগোয়া ৯ নম্বর নটবর দত্ত লেনের এক বাসিন্দার করোনা সংক্রমণের হদিস মিলেছে। তাঁকে একটি বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

এদিন করোনায় মৃত্যু হয়েছে সেনাবাহিনীর এক পদস্থ কর্তারও। ইস্টার্ন কমান্ডের ব্রিগেডিয়ার পদমর্যাদার ওই সেনা কর্তা ফোর্ট উইলিয়ামে কর্তব্যরত ছিলেন। কদিন আগে করোনার সংক্রমনের সমস্ত লক্ষণ নিয়ে তিনি সেনা হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিলেন। এদিন সেখানেই তাঁর মৃত্যু হয়। সেনাবাহিনীর তরফে জানানো হয়েছে যে, সমস্ত স্বাস্থ্যবিধি মেনেই ব্রিগেডিয়ারের শেষকৃত্য সম্পন্ন করা হবে।