করোনায় ভাঁটা পড়েছে রাখির ব্যবসায়, গত বছরের রাখি বিক্রি করছেন ব্যবসায়ীরা

262

গাজোল, ১ অগাস্টঃ আগামী সোমবারে রাখি বন্ধন। করোনা ভাইরাস সেই উৎসবের আনন্দে জল ঢেলে দিল। চিকিৎসক থেকে শুরু করে বিশেষজ্ঞ সকলেই এই সময় দূরত্ব বজায় রাখার পরামর্শ দিচ্ছেন। এদিকে, রাখি বাঁধতে হলে, একজনকে আরেকজনের সংস্পর্শে আসতেই হবে। সেকারণেই এই বন্ধনের মাঝে দূরত্ব বেড়েছে। ঝুঁকি নিয়ে উৎসব পালনে উৎসাহী নন কেউই। ভাই-বোন হোক বা বন্ধু-বান্ধব, অন্যের সংস্পর্শে আসতে দু’বার ভাবছেন সকলেই। তাই রাখির বাজারে ভাঁটা পড়েছে। প্রতিবার রাখি বন্ধনের অনেক আগে থেকেই গাজোলের বিভিন্ন জায়গায় ফুটপাতে রাখির দোকান বসে যেত। পাইকারি দামে নানা ডিজাইনের রাখি এনে, খুচরো বিক্রেতারা পসরা সাজিয়ে ফুটপাথে বসতেন। খদ্দেররা রাখি কিনতে ভিড় জমাতেন। কিন্তু, এবারে করোনার জেরে সেই দৃশ্য আর চোখেই পড়ছে না।

এবারে রাস্তার ধারে রাখির দোকান নেই। পাইকারি দোকানে নতুন ডিজাইনের রাখি আসেনি। রাখি ব্যবসায়ী কমল সাহা, সুবল বসাক, বিপ্লব চক্রবর্তী প্রমুখ জানান, করোনার জেরে এমনিতেই ব্যবসার অবস্থা খারাপ। তার ওপর গাজোলে চলছে আংশিক লকডাউন। প্রতিবছর প্রচুর পরিমাণে রাখি মজুত করা হত। গাজোল ব্লকের বিভিন্ন এলাকা থেকে ছোট দোকানদাররা তাঁদের থেকে রাখি কিনে নিয়ে যেতেন। কিন্তু, এবার বাজারের পরিস্থিতি বুঝে তাঁরা কেউই নতুন করে রাখি তোলেননি। তবুও, এরমধ্যে ছোটখাটো কিছু দোকানদার আসছে। গত বছর যে সমস্ত রাখি বিক্রি হয়নি, এবার সেগুলিই তাঁরা বিক্রি করছেন।

- Advertisement -

স্কুল বন্ধ থাকায় পড়ুয়ারা এবারে রাখি বন্ধন উৎসব উপভোগ করতে পারবেন না। রাখির খুচরো ব্যবসায়ীরা জানিয়েছেন, রাখি বন্ধন উৎসব যে এবার ভালোভাবে পালিত হবে না, তা তাঁরা আগে থেকেই বুঝতে পেরেছিলেন। তাই, তাঁরাও বেশি পরিমানে রাখি তোলেননি। গতবছরের বেঁচে যাওয়া কিছু রাখি নিয়ে বিক্রির জন্য যাচ্ছেন। কিন্তু, এবার তেমন বিক্রি নেই। অন্যান্যবার রাখি বিক্রি করে, তাঁদের ভালো উপার্জন হত। এবারে তাঁর সিকিভাগও উপার্জন হচ্ছে না। উদাস হয়ে ওই সমস্ত ব্যবসায়ীরা জানিয়েছেন, করোনা আবহের মধ্যে দিয়েই উৎসবের দিনটি হয়তো পেরিয়ে যাবে। কিন্তু, রাখি বন্ধন ঘিরে থাকবে না, সেই আনন্দ আর উচ্ছ্বাস।