করোনা কেড়েছে রুজি, স্বপ্ন ধরতে মহানন্দায় সাঁতার শিবু আকাশদের

521

পুরাতন মালদা: দিন কয়েক আগেও মহানন্দার জল বাঁধের গায়ে গা ঘষছিল। এখন তা ঘাট থেকে অনেকটাই দূরে। দিকশূণ্য ভেসে যাওয়া কচুরিপানা আর ঘরছাড়া শাঁপলার দলে শালিখ, বকের মৌরসীপাট্টা। আলতা-সিঁদুর মাখা দুগ্গা ঠাকুরের মুখ মৃদু ঢেউয়ে দুলে দুলে ভেসে যায় হয়তো কৈলাশের দিকে। বাঁধের ওপর এক এক করে এসে দাঁড়ায় আকাশ, শিবু, কৃষ্ণ, ভোদলরা।

একটুক্ষণ থেমে দেখে নেওয়া ভেসে যাওয়া মুখ গুলোকে। তারপর মওকা বুঝে ঝুপ করে ঝাঁপিয়ে পড়া মহানন্দায় ‘স্বপ্ন’ ধরতে। ঢেউ কাটিয়ে ভেসে যাওয়া কাঠামো ধরে তীরে ঠেকায় তাঁরা। ফি বছর এভাবেই দশমীর বিসর্জনে স্বপ্নের বোধন হয় আকাশ, শিবুদের।
পুরাতন মালদার সদরঘাটে নদী পাড়ের বস্তি এলাকায় ঘর আকাশ সাহানি, কৃষ্ণ মণ্ডল, ভোদল সাহানি, শিবু সাহানিদের।

- Advertisement -

সকলেই দিন আনি দিন খাই পরিবারের প্রতিনিধি। কেউ কাজ করে ঠিকা সাফাইকর্মীর, কেউ বা দিনমজুর। তবে গত কয়েক মাসে করোনা তাদের রোজগার কেড়ে নেওয়ায় আত্মবিশ্বাসও যেন হাঁটু মুড়ে বসে। মুখে সহানুভূতি দেখানো সমাজেও আখেরে নিজেকে ব্রাত্যজন ভাবাটা এখন অভ্যাসে পরিণত। এহেন অবস্থায় তারা সকলেই অপেক্ষায় থাকেন বিজয়া দশমীর। পুজোর আনন্দের থেকেও ঢের বেশি আনন্দ তাদের দশমীতে। লাল পেড়ে শাড়ি পড়া এয়োতিরা যখন একে অপরকে সিঁদুর রাঙা করে মায়ের বিদায়ে বুক ভাসায়, তখন মুখে হাসি ফোটে তাদের। ঢাক কাঁসরের আওয়াজে আকাশ বাতাস মুখরিত করে ঘাটের পানে চলেন মা। পিছে পিছে প্রায় নিঃশব্দে চলেন আকাশ, শিবুরা।

প্রবল হৈ হট্টগোলের মাঝে বাঁধের একপাশে চুপ করে দাঁড়ায় তাঁরা। প্রবল জয়ধ্বনিতে ভাসান হয় মায়ের। স্রোতের টানে ভেসে যায় কাঠামো। ওই কাঠামোতেই তো লুকোনো থাকে স্বপ্ন। এক একটা বড় কাঠামো বিক্রি হয় সাতশো থেকে হাজার টাকায়। সাত পাঁচ না ভেবে জলে ঝাঁপায় তাঁরা। স্রোতে গা ভাসিয়ে কাঠামো ধরে তীরে ভেড়ায়। দশমী, একাদশীতে দুপুর থেকে রাত অবধি এভাবেই কাটে তাদের।

তাদেরই একজন কৃষ্ণ মণ্ডল জানালেন, ‘করোনার জন্য গত কয়েকমাস ধরে কাজ নেই। টাকা না থাকায় পুজোতেও পরিবারের সবার নতুন জামাকাপড় হয় না। দশমীতে প্রতিমা বিসর্জন হলে আমরা কাঠামো ধরি। এখনও পর্যন্ত সকলে মলে সতেরোটি কাঠামো ধরেছি। বিক্রি করে যা আয় হবে, সকলে মিলে ভাগ করে নিব। ওই টাকা দিয়েই সাধ পূরণ হয় তাদের। ওই টাকা দিয়েই নতুন জামাকাপড়ের পাশাপাশি দু’পয়সা সঞ্চয় হয়।’

শিবু সাহানি, ভোদল সাহানিরা জানালেন, ‘খুব কষ্ট করে সংসার চলে আমাদের। এ বছর করোনার জন্য কাজ করতে পারিনি। তাই কাঠামো বিক্রি করেই কিছু টাকা আসবে হাতে। বাড়ির ছোটদের নতুন কিছু কিনে দিব।’

কাঠামো আসলে জলে গল যাওয়া প্রতিমার কঙ্কাল। সেই কঙ্কাল থেকেই আবার নতুনের বিজ বোনে শিবু ভোদলরা। বিসর্জন থেকেই বোধন হয় নতুনের। এই কটা দিন নাওয়া খাওয়া ভুলে আদুল গায়ে মহানন্দার জলে প্রহর গোনে তাঁরা। দূরে শোনা যায় ঢাক কাঁসরের আওয়াজ। বিসর্জনের জন্য ঘাটের দিকে এগিয়ে আসে আরেকটি দল। ধীরে ধীরে সেদিকে নিঃশব্দে এগিয়ে যায় ওরা- স্বপ্ন ধরবে বলে।