সোনাপুর ফাঁড়ির ওসি সহ ৭ পুলিশকর্মী করোনা আক্রান্ত

409

সুভাষ বর্মন, সোনাপুর: আলিপুরদুয়ার-১ ব্লকের সোনাপুর ফাঁড়ির ওসি সহ ৭ পুলিশকর্মীর শরীরে করোনা সংক্রমণের হদিস মিলল। এই নিয়ে বাকি পুলিশকর্মীদের মধ্যেও আতঙ্ক ছড়িয়েছে। যদিও করোনার জেরে সোনাপুর পুলিশ ফাঁড়ি একেবারে বন্ধ হয়নি। পুলিশকর্তাদের দাবি, এখন যেকজন স্টাফ আছে আপাতত তাঁদেরকে দিয়েই ফাঁড়ির কাজ চালানো হচ্ছে। এদিকে করোনা আক্রান্ত ওই পুলিশকর্মীর সংস্পর্শে কারা এসেছিলেন বা এই কয়জন পুলিশকর্মী দিয়ে বিস্তীর্ণ এলাকায় পুলিশের নজরদারি নিয়েও প্রশ্ন উঠছে এলাকায়।

জানা গিয়েছে, এর আগে কয়েকবার সোনাপুর ফাঁড়ির পুলিশকর্মীদের লালার নমুনা সংগ্রহ করে স্বাস্থ্য দপ্তর। কিন্তু গত ২৭ জুলাই রাতে এই ফাঁড়িতেই কর্মরত পলাশবাড়ির দুই সিভিক ভলান্টিয়ারের করোনা পরীক্ষার রিপোর্ট পজিটিভ আসায় পুলিশমহলে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। এজন্য গত শনিবার এই ফাঁড়ির ওসি সহ বাকি সব পুলিশকর্মীদের ফের লালার নমুনা সংগ্রহ করে স্বাস্থ্য দপ্তর। এখনও আরটিপিসিআর রিপোর্ট আসেনি। তবে রবিবার রাতে আলিপুরদুয়ার জেলা হাসপাতালের ট্রুনাট মেশিনে এখানকার সাত পুলিশকর্মীর রিপোর্ট পজিটিভ আসে।

- Advertisement -

সম্প্রতি আলিপুরদুয়ার জেলায় কোনও থানা বা ফাঁড়িতে এত সংখ্যক পুলিশকর্মী একসঙ্গে করোনায় আক্রান্ত হওয়ার খবর নেই। সোনাপুর ফাঁড়ির আক্রান্তদের মধ্যে রয়েছেন ওসি, মেজবাবু, একজন এএসআই, দুই কনস্টেবল ও দুই সিভিক ভলান্টিয়ার। আলিপুরদুয়ার-১-র বিএমওএইচ ডাঃ ভাস্কর সেন বলেন, ‘সাত পুলিশকর্মীর ট্রুনাট মেশিনে পজিটিভ এসেছে। এখন সবাই ব্যারাকে আইসোলেশনে রয়েছেন। আরটিপিসিআর রিপোর্ট এখনও আসেনি।’

এই পরিস্থিতিতে বাকি পুলিশকর্মীরাও আতঙ্কের মধ্যেই কাজ করছেন। এতজন পুলিশ আক্রান্ত হলেও এদিন ফাঁড়ি বন্ধ করা হয়নি। পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, এই পুলিশ ফাঁড়ির আওতায় রয়েছে শালকুমার-১, শালকুমার-২, পূর্ব কাঁঠালবাড়ি, পাতলাখাওয়া, মথুরা, চকোয়াখেতি গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকা। এই ছয়টি গ্রাম পঞ্চায়েতের পাশাপাশি জলদাপাড়া ও চিলাপাতা বনাঞ্চলের একাংশ আবার প্রয়োজনে তপসিখাতা এলাকায় কখনও সোনাপুর ফাঁড়ির পুলিশকে দেখতে হয়। জানা গিয়েছে, এখন ফাঁড়িতে রয়েছেন পুলিশের চারজন অফিসার, ৬-৭ জন কনস্টেবল ও সিভিক ভলান্টিয়ার। তাঁদের তরফে বিস্তীর্ণ এলাকায় নজরদারি চালানো কঠিন হয়ে দাঁড়িয়েছে। যদিও এই নিয়ে ফাঁড়ির কোনো পুলিশকর্তা মন্তব্য করতে চাননি। তবে আলিপুরদুয়ারের এসডিপিও কুতুবউদ্দিন খান বলেন, ‘এজন্য পুলিশের কাজ বন্ধ থাকবে না। বাইরের থানা থেকে কিছু বাড়তি স্টাফ ওখানে পাঠানো হবে।’