করোনা যুদ্ধে জয়ী হয়ে ঘরে ফিরল কিশোরী

357

রায়গঞ্জ: এবার করোনাকে হারিয়ে সুস্থ হয়ে মানুষের মনোবল অনেকটাই বাড়িয়ে দিল রায়গঞ্জ মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালের কর্মরত নার্সের মেয়ে। শনিবার বিকাল ৫টা নাগাদ সুস্থ অবস্থায় তাকে বাড়ি নিয়ে যাওয়া হয়। বাড়ি ফিরে যাওয়ায় রীতিমতো খুশি কোভিড হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। এদিন ফুলের তোড়া ও মিষ্টির প্যাকেট দিয়ে কিশোরীকে বিদায় জানান চিকিৎসক, নার্স ও স্বাস্থ্যকর্মীরা।

চলতি মাসের ১ তারিখ মেয়ের চিকিৎসার জন্য কলকাতায় গিয়েছিলেন রায়গঞ্জ শহরের দুই নম্বর ওয়ার্ডের সুদর্শনপুর এলাকার বাসিন্দা ওই নার্স ও তাঁর স্বামী। চলতি মাসের ৩ তারিখ মেয়ের অপারেশন করার কথা ছিল। কিন্তু অপারেশন করার আগে লালার নমুনা পরীক্ষা করা বাধ্যতামূলক করেছে রাজ্য স্বাস্থ্য ভবন। সেই মোতাবেক লালার নমুনা পরীক্ষা করা হয়। পরীক্ষার রিপোর্টে কিশোরীর করোনা পজিটিভ ধরা পড়ে। রিপোর্ট নিয়ে দ্রুত রায়গঞ্জে ফিরে জেলাশাসকের দপ্তরকে সমস্ত ঘটনা জানানো হয়। তড়িঘড়ি ওই নার্সের মেয়েকে রায়গঞ্জের কোভিড হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

- Advertisement -

স্বাস্থ্য দপ্তর সূত্রে জানা গিয়েছে, গত মাসের ১৬ তারিখ থেকে ওই নার্স রায়গঞ্জের কর্ণজোড়া ফাঁড়ির অন্তর্গত ছটপাড়ুয়া এলাকার কোভিড হাসপাতালে নার্সিং ইনচার্জ পদের দায়িত্বে ছিলেন। এদিন লালার নমুনা পরীক্ষা রিপোর্ট নেগেটিভ আসলে তাঁদের ছেড়ে দেওয়া হয়।

এই বিষয়ে কোভিড হাসপাতালের সুপারিনটেনডেন্ট দিলীপ কুমার গুপ্তা বলেন, ‘এই নিয়ে করোনা সংক্রামিত মোট ৮৭ জন রোগীকে সুস্থ করা হয়েছে। বর্তমানে নয় জন কোভিড হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।’ নার্সিং সুপারিনটেনডেন্ট বাপি বিশ্বাস বলেন, ‘আমাদের নিজস্ব পরিকাঠামো দিয়েই আমরা একের পর এক করোনা সংক্রামিতকে সুস্থ করে তুলতে পেরেছি। এদিন আমাদের এক সহকর্মীর মেয়েকে সুস্থ করে বাড়ি ফিরিয়ে দিতে পেরে ভালো লাগছে।’ তবে ওই নার্সের বক্তব্য, ‘করোনা পজিটিভ রিপোর্ট আসার পর কয়েকজন সোশ্যাল মিডিয়ায় ছবি পোস্ট করে আমাদের পরিবারকে সামাজিক বয়কটের মুখে ফেলে দিয়েছে।’ এদিন এই কথা বলতে গিয়ে কেঁদে ফেলেন তিনি। এই প্রসঙ্গে কোভিড হাসপাতালে সুপারিনটেনডেন্ট দিলীপ গুপ্তা জানান, যারা ফেসবুকে এই ধরনের পোস্ট করেছে তাঁদের বিরুদ্ধে পুলিশ প্রশাসনের আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া জরুরী। সামাজিক দূরত্ব ও স্বাস্থ্যবিধি মেনে চললেই করোনা থেকে মুক্তি পাওয়া যাবে। তবুও বহু চিকিৎসক, নার্স ও স্বাস্থ্যকর্মীরা হেনস্তার মুখে পড়ছেন।