সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়ের শারীরিক অবস্থার অবনতি, করতে হল দ্বিতীয়বার প্লাজমা থেরাপি

380

কলকাতা: শারীরিক অবস্থার কোনও উন্নতি নেই করোনা আক্রান্ত বর্ষীয়ান অভিনেতা সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়ের। এর আগে তাঁর প্লাজমা থেরাপি হয়েছিল। ফের আরও একবার তাঁর প্লাজমা থেরাপি করা হয়েছে বলে হাসপাতাল সূত্রে খবর।

জানা গিয়েছে, বর্ষীয়াণ অভিনেতার শরীরে পটাশিয়ামের মাত্রা এখনও বেশ কম রয়েছে। তবে অভিনেতার চিকিৎসার দায়িত্বে থাকা এক চিকিৎসক জানিয়েছেন, অভিনেতার শরীরে সোডিয়ামের মাত্রা এখন স্বাভাবিক। রক্তে অক্সিজেনের মাত্রা স্বাভাবিক হওয়া সত্ত্বেও অর্ধচেতন অবস্থায় রয়েছেন। শ্বাসপ্রশ্বাস ও রক্তচাপ স্বাভাবিক রয়েছে তাঁর। তবে, বিপদ এখনও সম্পূর্ণ কাটেনি বলেই অভিমত তাঁর চিকিৎসকদের। জানা গিয়েছে, অভিনেতার পরিস্থিতি চিকিৎসা বিজ্ঞানের পরিভাষায় যাকে বলা হয় ‘একিউট কনফিউশনাল স্টেট’। আপাতত তিনি কোভিড এনসেফেলোপ্যাথিতে ভুগছেন। ১২ জন চিকিৎসকের একটি দল তাঁকে প্রতিনিয়ত পর্যবেক্ষণ করছে।

- Advertisement -

সম্প্রতি, প্রবীণ অভিনেতা সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়ের করোনা পজিটিভ ধরা পড়ে। তাঁকে কলকাতার একটি বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। জানা গিয়েছে, কয়েকদিন ধরেই অসুস্থ ছিলেন বাংলা সিনেমার এই প্রবাদপ্রতীম অভিনেতা। এরপরই তাঁর কোভিড পরীক্ষা করানো হলে রিপোর্ট পজিটিভ আসে। কো-মর্বিডিটির কারণে তাঁকে ক্রিটিক্যাল কেয়ার ইউনিটে রাখা হয়। ক্রিটিক্যাল কেয়ার বিশেষজ্ঞ অরিন্দম করের নেতৃত্বে মেডিকেল বোর্ড তাঁর চিকিৎসা চলে। ভালোই ছিলেন তিনি। জ্বর নেই, এক্স-রে রিপোর্টেও মেলেনি ফুসফুসে সংক্রমণের কোনও চিহ্ন। রক্তে অক্সিজেনের মাত্রাও স্বাভাবিক ছিল। গত শুক্রবার বিকেল থেকেই তাঁর শারীরিক অবস্থার অবনতি হতে শুরু করে।

যদিও এরপর শনিবার দুপুরে সোশ্যাল মিডিয়ায় একটি পোস্টে তাঁর মেয়ে পৌলমী চট্টোপাধ্যায় সৌমিত্রবাবুর শারীরিক পরিস্থিতি সম্পর্কে তথ্য দেন। পৌলমী জানান, তাঁর বাবার শারীরিক পরিস্থিতি আপাতত স্থিতিশীল রয়েছে। শরীরের গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গ-প্রত্যঙ্গও ঠিকঠাক কাজ করছে। এমনকি অক্সিজেনের অভাবেও আপাতত তিনি ভুগছেন না। মোট ১২ জন চিকিৎসক তাঁর বাবার চিকিৎসা করছেন।

করোনা লকডাউন পরবর্তী সময়েও মনে জোর নিয়ে শ্যুটিং চালিয়ে গিয়েছিলেন বর্ষীয়ান অভিনেতা। পরমব্রত চট্টোপাধ্যায়ের পরিচালনায় নিজের বায়োপিক ‘অভিযান’ এর শ্যুটিং করেন তিনি। এছাড়াও সম্প্রতি এক মিউজিক রিয়ালিটি শোয়ের মঞ্চেও বিশেষ অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন সৌমিত্রবাবু। জানা যাচ্ছে গত ৩০ সেপ্টেম্বর ভারতলক্ষ্মী স্টুডিওতে একটি ডকু-ফিুচারের জন্য শ্যুটিং করেন তিনি। সেদিনই তিনি জানান তাঁর শরীর ভালো লাগছে না। ওই ইউনিটে প্রায় ২৫-৩০ জনের কলাকুশলী ছিলেন, সকলকেই করোনা পরীক্ষার পাশাপাশি হোম আইসোলেশনে থাকার পরামর্শ দিচ্ছেন চিকিৎসকরা।

এর আগে টলিউডেও হানা দিয়েছে করোনা ভাইরাস। অভিনেত্রী কোয়েল মল্লিকের গোটা পরিবারের পাশাপাশি পরিচালক রাজ চক্রবর্তী সহ অনেকেই কোভিডে আক্রান্ত হয়েছেন। তবে তাঁরা প্রত্যেকেই কোভিডকে জয় করে বর্তমানে সুস্থ হয়ে উঠেছেন। কোভিডের থাবা শুধুমাত্র বাংলা সিনেমা নয়, টেলিভিশনের বহু অভিনেতা ও কুশীলরাও করোনা আক্রান্ত হয়েছেন বলে জানা গিয়েছে।