মারণ করোনাকে জয় করে শাশুড়ির সঙ্গে ঘরে ফিরলেন সুস্থ নার্স

481

রণজিৎ ঘোষ, শিলিগুড়ি: করোনায় আক্রান্ত উত্তরবঙ্গ মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালের নার্স ও তাঁর শাশুড়ি পুরোপুরি সুস্থ হয়ে বুধবার ঘরে ফিরলেন। চলতি মাসের দ্বিতীয় সপ্তাহে ওই নার্স এবং তাঁর স্বামী, শিশু কন্যা এবং শাশুড়ি করোনায় আক্রান্ত হন।

তাঁরা মেডিকেল সংলগ্ন শান্তিনিকেতন আবাসনে থাকেন। প্রায় ১৫ দিন সেখানে থাকার পর সুস্থ হয়ে গতকাল রাতে ছুটি পেয়েছেন। কিন্তু রাতে তাঁরা বাড়ি ফেরেননি। এদিন দুপুরে পুলিশ এই দু’জনকে গাড়িতে করে শান্তিনিকেতন আবাসনে পৌঁছে দেয়। সেখানে আবাসিকরা হাত তালি দিয়ে তাঁদের স্বাগত জানান। ওই নার্সের স্বামী এবং শিশু কন্যার শরীরে এখনও করোনার সংক্রমণ থাকায় তাঁদের ছুটি দেওয়া হয়নি।

- Advertisement -

প্রসঙ্গত, করোনায় আক্রান্ত হয়ে মৃত কালিম্পংয়ে মহিলার চিকিৎসায় যুক্ত থাকা উত্তরবঙ্গ মেডিকেলের দুই নার্স পরপর ওই রোগে আক্রান্ত হন। ৬ এপ্রিল অর্থাৎ সোমবার প্রথম নার্স করোনায় আক্রান্ত হন। এরপর দ্বিতীয় নার্সের শরীরে করোনার সংক্রমণ পাওয়া গিয়েছে। এর পরই ওই নার্সের স্বামী এবং দেড় বছরের শিশু সন্তানকে মেডিকেলের আইসোলেশন ওয়ার্ডে ভর্তি করে লালা রসের নমুনা পরীক্ষা করা হয়। নার্সের শাশুড়ির শরীরে করোনার উপসর্গ না থাকায় তাঁকে প্রথমে মেডিকেল সংলগ্ন কোয়ারান্টিন সেন্টারে নিয়ে যাওয়া হয়।

আরও পড়ুন: প্রয়াত অভিনেতা ইরফান খান

পরদিন অর্থাৎ মঙ্গলবার নার্সের স্বামীর শরীরে করোনার সংক্রমণ ধরা পড়ে। তবে, রিপোর্ট অনুযায়ী শিশুটি করোনায় আক্রান্ত হয়নি। সেদিনই নার্স এবং তাঁর স্বামীকে কোভিড-১৯ এর জন্য নির্দিষ্টভাবে নেওয়া হিমাঞ্চল বিহারের ডাঃ চ্যাং সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়েছে।

অন্যদিকে, কোযারান্টিনে থাকা নার্সের শাশুড়ির লালার নমুনা পরীক্ষার জন্য নেওয়া হয়। বুধবার ল্যাবরেটরিতে সেই নমুনা পরীক্ষায় পজিটিভ ধরা পড়ে। বিকেলেই তাঁকেও কোভিড-১৯ হাসপাতালে পাঠিয়ে দেওয়া হয়। নার্সের শিশুটিকে দেখার জন্য আর কেউ না থাকায় তাকেও বাধ্য হয়ে ওই হাসপাতালে পাঠানো হয়। এদিন নার্স ও তাঁর শাশুড়ি সুস্থ হয়ে বাড়ি ফেরেন।