করোনা রুখতে টিকাই যথেষ্ট নয়, সতর্কতা হু’র

410

নিউজ ডেস্ক: টিকা কি আদৌও নোভেল করোনা ভাইরাস থেকে মুক্তি দিতে সক্ষম? সেই টিকা প্রয়োগে কি দেখা দেবে অন্য কোনও পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া? আর সেই প্রশ্নের উত্তর খুঁজতেই মরিয়া আপামর বিশ্ব। তারইমধ্যে সোমবার বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (হু) প্রধান টেডরোস ঘেবরেসাস জানালেন, করোনা রুখতে শুধুমাত্র টিকাই যথেষ্ট নয়।

এদিন তিনি বলেন, ‘আমাদের এখনও যে উপায়গুলি আছে, সেগুলির আরও পরিপূরক হবে টিকা। কিন্তু সেগুলিকে পালটে দেবে না।’ একইসঙ্গে তিনি জানান, প্রাথমিকভাবে স্বাস্থ্যকর্মী, প্রবীণ মানুষ এবং ঝুঁকিপূর্ণ মানুষকে করোনা টিকা প্রদান করা হবে। টিকা দেওয়ার ক্ষেত্রে তাঁদের অগ্রাধিকার দেওয়া হবে। তার ফলে মৃতের সংখ্যা কমবে এবং স্বাস্থ্য ব্যবস্থাকে আরও কিছুটা মজবুত হবে বলে আশাপ্রকাশ করেছেন বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রধান।

- Advertisement -

টিকা আবিষ্কার হলেও সতর্কতায় কোনও ফাঁক রাখা যাবে না বলে সতর্ক করেছেন ঘেবরেসাস। তিনি বলেন, ‘তারপরও সংক্রমণের যথেষ্ট সুযোগ থাকবে ভাইরাসের। নজরদারি চালিয়ে যেতে হবে। মানুষকে তারপরও পরীক্ষা করতে হবে, নিভৃতবাসে থাকতে হবে, চিকিৎসা করতে হবে, করোনা আক্রান্তের সংস্পর্শে আসা মানুষদেরও খুঁজে বের করতে হবে। মানুষের দেখভাল করতে হবে।’

তারইমধ্যে তৃতীয় পর্যায়ের ট্রায়ালের প্রাথমিক তথ্য থেকে জানা গিয়েছে, ফাইজারের পর মডার্না। করোনা ভাইরাস (কোভিড ১৯) জয়ে আরও এক ধাপ এগিয়ে গেল বিশ্ব। আমেরিকাজুড়ে করোনা সংক্রমণ বেড়ে চলার মুহূর্তেই সুখবর শোনাল মার্কিন বায়োটেক ফার্ম মডার্না ইনকর্পোরেশন। সংস্থার দাবি, তাদের তৈরি টিকা করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে ৯৪.৫ শতাংশ কার্যকর। মডার্না জানিয়েছে, খুব শীঘ্রই তারা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের খাদ্য ও ওষুধ প্রশাসন (এফডিএ) কর্তৃপক্ষের কাছে আবেদন করবে, যাতে এই টিকা জরুরি চিকিৎসার জন্য ব্যবহারের অনুমতি দেওয়া হয়।

মার্কিন সংস্থার সিইও স্টিফেন ব্যানসেল বলেন, ‘এই তৃতীয় পর্যাযের গবেষণার ইতিবাচক মূল্যায়ন প্রথমবার তার বৈধতা দিয়েছে যে আমাদের টিকা যে কোভিড-১৯ রোগকে রুখতে পারবে।’