বাঁশের ব্যারিকেড দিয়ে কোভিড রোখা যাবে না: অভিজিৎ চৌধুরী

1183

বর্ধমান: লোহার বাসর ঘর তৈরি করেও বিষধর সাপের ছোবল থেকে লক্ষীন্দরকে বাঁচানো যায়নি। তেমনি কনটেনমেন্ট জোনে শুধুমাত্র বাঁশের ব্যারিকেড দিয়ে কিছু মানুষকে জেলে ভরার মতো করে আটকে রেখে কোভিড সংক্রমণ রোখা যাবে না। শনিবার বর্ধমান বিশ্ববিদ্যালয় আয়োজিত বিশেষ অনুষ্ঠানে যোগ দিয়ে এমনটাই জানালেন রাজ্যের কোভিড উপদেষ্টা মণ্ডলীর সদস্য চিকিৎসক অভিজিৎ চৌধুরী। তিনি কোভিড নিয়ে অহেতুক ভীতি না ছড়ানোরও বার্তাও দেন।

বর্ধমান বিশ্ববিদ্যালয়ের কাদম্বিনী সভাঘরে আয়োজিত ‘কোভিড কেয়ার নেটওয়ার্ক’ নামে একটি সংস্থার বর্ধমান শাখার উদ্বোধন অনুষ্ঠানে আসেন চিকিৎসক অভিজিৎ চৌধুরী। কোভিড কেয়ার নেটওয়ার্কের কাজ শুরুর অনুষ্ঠানে অংশ নিয়ে তিনি সমাজের সর্বস্তরের মানুষকে করোনাকে জয় করার লড়াইয়ে সামিল হবার আহ্বান জানান। একই সঙ্গে তিনি কনটেইনমেন্ট জোনের ধরণ নিয়েও কঠোর সমালোচনা করেন।

- Advertisement -

তিনি বলেন, লোহার তৈরি বাসর ঘর করেও লক্ষ্মীন্দরকে সাপের ছোবল থেকে বাঁচানো যায়নি। তেমনি বাঁশের ব্যারিকেডের প্রাচীর তুলে সাধারণ মানুষকে শুধু জেলে ভরার মতো করে রেখে দিয়ে কোভিড ঠেকানো যাবে না। কোভিড নিয়ে অহেতুক ভীতি না ছড়ানোর বার্তা দেন অভিজিৎ বাবু। তিনি বলেন, কোভিড মানেই আতঙ্ক, কোভিড মানেই মৃত্যু, ভয়, বিভীষিকা এমনটা মোটেই নয়। বরং, কোভিডে আক্রান্ত হয়ে যাঁরা সুস্থ হয়ে উঠেছেন সেই কোভিড জয়ী এবং কোভিড যোদ্ধারা কোভিড কেয়ার নেটওয়ার্কের সম্পদ।

কোভিড নিয়ে প্রশাসনকে আরও সংবেদনশীল হওয়ার বার্তাও দিয়ে যান অভিজিৎ বাবু। তিনি বলেন, কনটেইমেন্ট জোনে বাঁশের ব্যারিকেড দিয়ে ওখানকার সমাজকে বিচ্ছিন্ন দ্বীপে পরিণত করা হচ্ছে। ফলত ওখানকার মানুষজনকে খুব কষ্টের মধ্যে পড়তে হচ্ছে। মানসিক ভাবে কাউকে মেরে দিয়ে কোভিডের বিরুদ্ধে লড়াই করা যাবে না। করোনার জেরে মানুষ স্বার্থপর হয়ে যাচ্ছে। কেউ কারও কথা ভাবছে না। কিন্তু এইটা করোনার বিরুদ্ধে লড়াইয়ের পথ নয়। সবাইকে মনে রাখতে হবে করোনা মানে মৃত্যু নয়, করোনা মানে জয়। প্রশাসনের সঙ্গে সহযোগীতা করে এই বার্তাই সর্বত্র তুলে ধরতে হবে।