একসপ্তাহে পশ্চিম বর্ধমানে করোনা আক্রান্ত হয়ে মৃত ১০, আক্রান্ত ৬১৫

0
165
- Advertisement -

আসানসোল: করোনা আক্রান্ত হয়ে পশ্চিম বর্ধমান জেলায় মৃত্যু হল আরও ১০ জনের। গত ১০ অক্টোবর থেকে ১৬ অক্টোবর পর্যন্ত নতুন করে করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ৬১৫ জন। যদিও জেলায় এই সাতদিনে করোনাকে হারিয়ে সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ৪৪৫ জন। এই সময়ের মধ্যে জেলায় অ্যাক্টিভ করোনা রোগীর সংখ্যা ১৬০ জন বেড়েছে।

জেলা স্বাস্থ্য দপ্তর সূত্রে জানা গিয়েছে, গত শনিবার ১০ অক্টোবর রাত পর্যন্ত এই জেলায় করোনা আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুর সংখ্যা ছিল ৮০। ১৬ অক্টোবর শুক্রবার রাতে জেলা স্বাস্থ্য দপ্তর সূত্রে জানা যায়, জেলায় মৃত্যুর সংখ্যা এখন বেড়ে হয়েছে ৯০ জন। যার মধ্যে গত ২৪ ঘণ্টায় জেলায় ৪ জনের মৃত্যু হয়েছে। ১০ অক্টোবর জেলায় করোনা আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা ছিল ৮,০৩১ জন। ১৬ অক্টোবর রাত পর্যন্ত তা বেড়ে হয়েছে ৮,৬৪৬ জন। একইভাবে ১০ অক্টোবর জেলায় করোনায় সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরে যাওয়া রোগীর সংখ্যা ছিল ৭,১১৬ জন। শুক্রবার রাত পর্যন্ত সুস্থ হওয়ার সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ৭,৫৬১ জন। ১০ অক্টোবর রাত পর্যন্ত জেলায় অ্যাক্টিভ করোনা রোগীর সংখ্যা ছিল ৮৩৫ জন। শুক্রবার রাত অর্থাৎ ১৬ অক্টোবর রাত পর্যন্ত জেলায় অ্যাক্টিভ করোনা রোগীর সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ৯৯৫ জন। এই সাতদিনের মধ্যে দু’দিন বাদ দিলে, পাঁচ দিনে আক্রান্ত ও সুস্থতার সংখ্যা বলতে গেলে প্রায় সমান।

অন্যদিকে, দূর্গাপুরের কোভিড হাসপাতালে শনিবার সকালে করোনা আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু হয়েছে এক রেলকর্মীর। বছর ৪৫-এর ইউসি ওঝা নামে ওই রেলকর্মী চিত্তরঞ্জন রেল ইঞ্জিন কারখানার স্টিল ফাউন্ড্রিতে কর্মরত ছিলেন। গত ১৫ দিন ধরে তিনি অসুস্থ ছিলেন। এদিকে সালানপুর পঞ্চায়েত সমিতির স্বাস্থ্য কর্মাধ্যক্ষ সস্ত্রীক এদিন করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। তাঁরা হোম আইসোলেশনে রয়েছেন৷

আগামী সপ্তাহে শুরু হবে দুর্গাপুজো। তার আগে জেলায় করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ও মৃত্যু কিছুটা হলেও বেড়েছে। যদিও জেলা প্রশাসন ও স্বাস্থ্য দপ্তরের দাবি, গোটা পরিস্থিতির দিকে নজর রাখা হচ্ছে। সবকিছুই এখন নিয়ন্ত্রণের মধ্যে রয়েছে। হাসপাতালে হাসপাতালে বেড নিয়ে কোনও সমস্যা এখনোও পর্যন্ত নেই। প্রয়োজন হলে, তা বাড়িয়ে নেওয়া হবে। সেফ হোমের সংখ্যাও বাড়ানো হবে।

দিন তিনেক আগেই গোটা করোনা পরিস্থিতি নিয়ে একটি বৈঠক করেন জেলাশাসক পূর্ণেন্দু কুমার মাজি ও জেলার মুখ্য স্বাস্থ্য আধিকারিক ডাঃ অশ্বিনী কুমার মাজি। তাঁরা জানিয়েছেন, প্রয়োজন মতো পদক্ষেপ করা হবে। আসানসোল দূর্গাপুরের পুলিশ কমিশনার সুকেশ জৈনও ইতিমধ্যেই জেলার বিভিন্ন পুজো মণ্ডপ ঘুরে দেখেছেন। করোনা সংক্রমণ আটকাতে কি কি পদক্ষেপ করা হবে, তা নিয়ে পুজো উদ্যোক্তাদের অবহিত করেছেন। থানাগুলিকে সাধারণ মানুষের মধ্যে সচেতনতার প্রচার করতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

- Advertisement -