শীঘ্রই তৃণমূলে যোগ দিতে চলেছেন এই বাম নেতা

338

মানিকগঞ্জ: একুশের বিধানসভা নির্বাচনে তৃণমূল কংগ্রেসের জয়ের পর থেকেই ঘাসফুল শিবিরে যোগদানের হিড়িক পড়ে গিয়েছে জলপাইগুড়িতে। তারই ধারাবাহিকতায় বড়সড়ো ভাঙন হতে চলেছে জেলার ফরওয়ার্ড ব্লক শিবিরে। সারা ভারত যুব লিগের জলপাইগুড়ি জেলা কমিটির কার্যকরী সভাপতি তথা নগর বেরুবাড়ি অঞ্চল কমিটির সম্পাদক ধীরাজ রায় খুব শীঘ্রই তৃণমূলে যোগ দিতে চলেছেন। তিনি ফরওয়ার্ড ব্লকের বাংলা কমিটির কাউন্সেলিং মেম্বার ও জেলা কমিটির অন্যতম সদস্যও বটে। তাঁর সঙ্গে মূল সংগঠনের লোকাল, ছাত্র, যুব ও মহিলার কমিটির একঝাঁক নেতা অনুগামীদের নিয়ে তৃণমূলে যোগ দেবেন বলে বৃহস্পতিবার জানিয়েছেন ধীরাজ। এলাকায় প্রভাব ফেলতে নগর বেরুবাড়িতেই ওই দলবদল কর্মসূচি হবে। ফরওয়ার্ড ব্লকের এই ভাঙনে রীতিমতো শোরগোল পড়ে গিয়েছে জেলার রাজনৈতিক মহলে।

শীঘ্রই তৃণমূলে যোগ দিতে চলেছেন এই বাম নেতা| Uttarbanga Sambad | Latest Bengali News | বাংলা সংবাদ, বাংলা খবর | Live Breaking News North Bengal | COVID-19 Latest Report From Northbengal West Bengal India
ধীরাজ রায়

পালা বদলের পর এই প্রথম বিধানসভা নির্বাচনে জলপাইগুড়ি বিধানসভা আসনটি দখল করে তৃণমূল। নির্বাচনে আসন রফায় জলপাইগুড়ি আসনে প্রার্থী দেয় জোটসঙ্গী কংগ্রেস। ফরওয়ার্ড ব্লকের তরফে এর ঘোর বিরোধিতা করেন ধীরাজ। দলীয় প্রার্থী দেওয়া না হলে নির্বাচনে নির্দল প্রার্থী হিসেবে লড়াই করার কথাও ঘোষণা করেছিলেন তিনি। কিন্তু ঠিক সেই মুহূর্তে তাঁর পিতার অকাল প্রয়াণে নির্বাচনে প্রার্থী হওয়া আর হয়নি। তারপর থেকেই দলের সঙ্গে তাঁর দূরত্ব তৈরি হয় বলে মনে করছেন রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞরা। এতেই খানিকটা হতাশায় ভুগছিলেন ধীরাজ। তবে তিনি দল ত্যাগ করে তৃণমূল শিবিরে চলে যাবেন এটা কোনওভাবেই মেনে নিতে পারছেন না দলের নেতা-কর্মীরা। ধীরাজ তৃণমূলে যোগদানের কথা এদিন স্বীকার করলেও কেন ফরোয়ার্ড ব্লক ছাড়ছেন, সে নিয়ে কোনও মন্তব্য করতে চাননি।

- Advertisement -

ধীরাজ জানান, তাঁর নেতৃত্বে দলবদলের বিশাল তালিকা তৈরি করা হয়েছে। এতে আছেন সদর লোকাল কমিটির সদস্য সবুজচন্দ্র দাস, যুব লিগের অঞ্চল কমিটির সম্পাদক নিবেন রায় ও সভাপতি অর্জুন রায়, ছাত্র ব্লকের অঞ্চল সম্পাদক মহেশ মণ্ডল ও সভাপতি দীপঙ্কর বিশ্বাস, অগ্রগামী মহিলা সমিতির সম্পাদিকা তথা প্রাক্তন উপপ্রধান চম্পা রায় ও প্রাক্তন পঞ্চায়েত সদস্যা ললিতা রায় এবং তাঁদের অনুগামী সহ নগর বেরুবাড়ি অঞ্চলের একঝাঁক ফরওয়ার্ড ব্লক নেতৃত্ব। ধীরাজ আরও জানান, ইতিমধ্যেই অনুমোদনের জন্য এই তালিকা তৃণমূলের জেলা নেতৃত্বের কাছে পাঠানো হয়েছে। তৃণমূলের তরফে ২২ জুলাই দলের শহিদ দিবসের পর এই যোগদান কর্মসূচি অনুষ্ঠিত হবে বলে জানানো হয়েছে।

যুব লিগের অঞ্চল কমিটির সম্পাদক নিবেন রায় ও সভাপতি অর্জুন রায় জানান, কংগ্রেসের সঙ্গে বামফ্রন্টের অশুভ আঁতাত মানতে না পেরে ও রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সামাজিক উন্নয়ন প্রকল্পের প্রতি আস্থা রেখে ও সর্বভারতীয় স্তরে বিজেপিকে তৃণমূলে যোগদানের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন তাঁরা।

ছাত্র ব্লকের অঞ্চল সম্পাদক মহেশ মণ্ডল জানান, মা-মাটি-মানুষের নেত্রীর আদর্শে অনুপ্রাণিত হয়ে ও জেলা নেতৃত্বের প্রতি আস্থা রেখে দলবদল করতে চলেছেন তিনি। এই দলবদল হলে নগর বেরুবাড়ি গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকায় সিংহের গর্জন আর শুনতে পাওয়া যাবে না বলে দাবি স্থানীয় তৃণমূল নেতৃত্বের।