তারকাদের কুকথা বলে বিতর্কে পেরেজ

মাদ্রিদ : ক্রিশ্চিয়ানো রোনাল্ডো নির্বোধ। হোসে মোরিনহো অস্বাভাবিক। ইকের ক্যাসিয়াস বোকা। রাউল গঞ্জালেজ প্রতারক।

ক্লাবের প্রাক্তন তারকা কোচ ও ফুটবলারদের সম্পর্কে এমনই বিশেষণ ব্যবহার করেছেন রিয়াল মাদ্রিদের সভাপতি ফ্লোরেন্তিনো পেরেজ। সম্প্রতি স্পেনের একটি সংবাদমাধ্যম পেরেজের কিছু অডিও ফাঁস করেছে। সেখানে দলের প্রাক্তন তারকাদের সম্পর্কে এই ভাষাই শোনা গিয়েছে তাঁর মুখে। এই অডিও ২০০৬ থেকে ২০১২ সালের মধ্যে রেকর্ড করা হয়েছে। ইউরোপিয়ান সুপার লিগের বিতর্ক থামার আগেই ফের ঝড়ের মুখে এই স্প্যানিশ ফুটবলকর্তা।

- Advertisement -

২০১২ সালের একটি অডিওয় রোনাল্ডো এবং তৎকালীন কোচ মোরিনহো সম্পর্কে মুখ খুলেছেন পেরেজ। পর্তুগিজ মহাতারকা নিয়ে তাঁর বক্তব্য, ও একেবারে পাগল, নির্বোধ, মানসিকভাবে অসুস্থ। বাইরে থেকে দেখে স্বাভাবিক মনে হলেও ও তা নয়। কারণ কোনও সুস্থ স্বাভাবিক মানুষ এধরণের কাজ করে না। এই লোকগুলোর মধ্যে প্রচুর ইগো, কোচ আর ফুটবলার দুটোই আদরে নষ্ট হয়ে গিয়েছে। ওরা বাস্তবটা দেখে না। মোরিনহো নিয়ে পেরেজের মূল্যায়ণ, ও একজন নিখাঁদ বোকা। এমন নয় যে ও খেলতে চায় না। আসনে ও একটু অস্বাভাবিক। ও লাইসেন্স ছাড়া গাড়ি চালায়। ও চাপের মুখে ভেঙে পড়েছে, বোঝাই যাচ্ছে।

২০০৬ সালের অন্য একটি রেকর্ডে পেরেজের নিশানায় রাউল ও ক্যাসিয়াস। স্পেনের সর্বকালের সেরা গোলরক্ষক সম্পর্কে তিনি বলেন, রিয়ালের গোলরক্ষক হওয়ার কোনও যোগ্যতা ওর নেই। আর কী বলব! এই যোগ্যতা ওর নেই, কখনই যোগ্য ছিল না ও। আমরা একটা বড় ভুল করেছি। আর সমর্থকরা ওকে পছন্দ করে। সবসময় ওর সঙ্গে কথা বলতে চায়, ওকে আগলে রাখে। কিন্তু বাস্তবে রিয়ালের ইতিহাসে ও সবচেয়ে বড় প্রতারকদের একজন। অন্যজন হল রাউল। তৎকালীন দল সম্পর্কে পেরেজের দাবি, ফুটবলাররা সব স্বার্থপর। ওদের ওপর কোনওভাবে আস্থা রাখা যায় না। আস্থা রাখলে তুমিই ডুববে। রিয়ালে সেসময় জিনেদিন জিদান, রোনাল্ডোর মতো কিংবদন্তিরা খেলতেন।

তবে রাউলের উপর একটু বেশিই চটে ছিলেন পেরেজ। প্রাক্তন স্ট্রাইকার সম্পর্কে তিনি মন্তব্য করেন, রাউল একেবারেই বাজে লোক। ও মনে করে ক্লাবটা ওর। ক্লাবকে নিজের স্বার্থে ব্যবহার করে। ক্লাবের সমস্যার মূল কারণ রাউল আর ওর এজেন্ট। আমার পদ যাওয়ার পেছনে ও একটা বড় কারণ। তবে ও বুঝতে পারছে যে ওর সময়ও শেষ হয়ে আসছে। তাই যাওয়ার আগে ক্লাবটাকে শেষ করতে চাইছে। কাজটা এমনভাবে করছে যাতে লোকে বলে ক্লাব ওকে নষ্ট করেছে, দোষটা রাউলের নয়, ক্লাবের। আসলে ও খুবই নেতিবাচক মানুষ। নিজের প্রভাব খাটিয়ে বাকিদেরও নষ্ট করছে। খুবই জঘন্য।

এই তিন ফুটবলারই ক্লাবের সর্বকালের অন্যতম সেরা, সাদা জার্সিতে বহু ট্রফি জিতেছেন। এরমধ্যে রাউল এবং ক্যাসিয়াসের কেরিয়ারের শুরু থেকে শেষের প্রায় পুরোটাই মাদ্রিদে কাটিয়েছেন। এখনও তাঁরা ক্লাবে বিভিন্ন দায়িত্বে রয়েছেন। ঘরের ছেলেদের প্রতারক বলায় পেরেজের উপরে চটেছেন সমর্থক থেকে শুরু করে প্রাক্তনীরাও। ক্লাবের তরফে জারি করা বিবৃতিতে ঘুরিয়ে অডিওর সত্যতা মেনে নিয়েছেন পেরেজ। তবে তাঁর দাবি, উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে এখন এই অডিও প্রকাশ করা হয়েছে। যদিও ষড়যন্ত্রের তত্ত্ব দিয়ে নিজের কুকথা পুরোপুরি ঢাকতে পারেননি তিনি।