নাগর নদী থেকে ঘড়িয়াল উদ্ধার

463

রায়গঞ্জ: শুক্রবার সকালে মাছ ধরতে গিয়ে মৎসজীবীদের জালে ধরা পড়ল একটি ঘড়িয়াল। রায়গঞ্জ ব্লকের ৯ নং গৌরি অঞ্চলের ভিটিয়ারে নাগর নদী থেকে ঘড়িয়াল উদ্ধারের ঘটনায় ব্যাপক চাঞ্চল্য ছড়ায়। ঘড়িয়ালটিকে দেখতে উৎসুক গ্রামবাসীদের ভিড় উপচে পড়ে এলাকায়। দীর্ঘদিন পর নদীতে এই ধরনের জলজ জন্তু দেখা যাওয়ায় তা দেখতে রায়গঞ্জ শহর সহ আশপাশের এলাকা থেকে মানুষ ছুটে যান ভিটিয়ারে। পরে সেটিকে বনদপ্তরের হাতে তুলে দেওয়া হয়।

এদিন নদীতে কুমিরের আকৃতির জন্তুকে ভেসে যেতে দেখে আতঙ্কিত হয়ে পড়েন বাসিন্দারা। প্রথমে কুমির ভেবে নদীতে কেউ নামতে চাননি। পরে মৎসজীবীরা নদীতে মাছ ধরতে নামলে গ্রামের যুবকেরাই সাহস করে দড়ির ফাঁস লাগিয়ে নদী থেকে তুলে আনেন অজানা জন্তটিকে। পরে দেখা যায় সেটি একটি ঘড়িয়াল। নিমেষের মধ্যে চারিদিকে ছড়িয়ে যায়, নাগর থেকে কুমির উদ্ধার হয়েছে। দলে দলে লোক আসতে শুরু করেন।

- Advertisement -

সাধারণত বড় বড় নদীতে এই ধরনের ঘড়িয়াল দেখা যায়। নাগর, কুলিক নদীতে এদের দেখা পাওয়া যায় না। বাসিন্দাদের ধারণা, সম্ভবত বর্ষার জলে মহানন্দা বা তিস্তা নদী থেকে ভেসে এসেছে এটি। জন্তুটিকে নিয়ে ছবি তোলার হিড়িকও দেখা যায় এলাকার উৎসুক যুবকদের মধ্যে। স্থানীয় মৎস্য ব্যবসায়ী সুদেব দাস জানান, মৎসজীবীরা আজ নদীতে মাছ ধরতে গিয়ে ঘড়িয়ালটিকে দেখেন। এরপর তাঁরা গ্রামবাসীদের সহযোগিতায় সেটিকে উদ্ধার করেন।

স্থানীয় বাসিন্দা সাদ্দাম হোসেন বলেন, আজ সকালে নাগর নদীতে একটি জন্তু ভেসে যেতে দেখেন মৎসজীবীরা। তাঁরা আমাদের বিষয়টি জানালে নদী থেকে দড়ি বেঁধে উদ্ধার করা হয়েছে ঘরিয়ালটিকে। রায়গঞ্জ বন বিভাগে খবর দেওয়া হয়েছে। তাঁদের হাতেই তুলে দেওয়া হবে কুমির প্রজাতির জন্তুটিকে। একটি পশুপ্রেমী সংস্থার সম্পাদক গৌতম তান্তিয়া বলেন, আজ সকালে খবর আসতেই আমরা ভিটিয়ারে পৌঁছে যাই।গ্রামবাসীদের সহযোগিতায় ঘড়িয়ালটিকে বন দপ্তরের হাতে তুলে দেওয়া হয়েছে।

জেলা বন আধিকারিক সোমনাথ সরকার বলেন, ঘড়িয়াল সাধারণত মহানন্দা বা তিস্তা নদীতে দেখতে পাওয়া যায়। নাগরের সঙ্গে সংযোগ থাকায় সেটি স্রোতে চলে এসেছে। আপাতত আমরা সেটিকে রায়গঞ্জের কুলিক ফরেস্টে পর্যবেক্ষণের জন্য রেখেছি। কয়েকদিন পর পাঠিয়ে দেওয়া হবে।