ভারত-বাংলাদেশ মৈত্রী সাইকেল র‍্যালি

232

হেমতাবাদ: দুই দেশের সীমান্তবর্তী বাসিন্দাদের মধ্যে সমন্বয় বাড়াতে বিএসএফের তরফে অনুষ্ঠিত ভারত-বাংলাদেশ মৈত্রী সাইকেল র‍্যালি পৌঁছোলো হেমতাবাদে। ৬৬ দিনের এই সাইকেল র‍্যালি বৃহস্পতিবার উত্তর দিনাজপুরের হেমতাবাদের মালন সীমান্ত সংলগ্ন বামরোই বিওপিতে এসে পৌঁছোয়। জাতীয় পতাকা উত্তোলন করে র‍্যালিতে অংশগ্রহণকারীদের স্বাগত জানান রায়গঞ্জের সাংসদ তথা কেন্দ্রীয় প্রতিমন্ত্রী দেবশ্রী চৌধুরী।

১০ জানুয়ারি উত্তর ২৪ পরগনা জেলার পানিতর সীমান্ত থেকে মৈত্রী র‍্যালির যাত্রার সূচনা হয়। দেশের বিভিন্ন সীমান্ত এলাকা দিয়ে সাইকেল র‍্যালিটি ৩,২৬৬ কিলোমিটার পথ অতিক্রম করে ১৭ মার্চ বাংলাদেশের বঙ্গবন্ধু প্রয়াত শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মদিবসে মিজোরামের সিলকোর সীমান্তে পৌঁছোবে। বিএসএফ সূত্রে জানা গিয়েছে, মোট ১৭ জন বিএসএফ কর্মী এই সাইকেল র‍্যালিতে অংশগ্রহণ করেছেন। বিএসএফ এবং বিজিবির জওয়ানরাও দুই দেশের র‍্যালিতে শামিল হন। এদিন বিকেল ৪টা পর্যন্ত সংশ্লিষ্ট বিওপি এলাকায় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান হয়। বিএসএফের ১৭৫ নম্বর ব্যাটেলিয়নের এক আধিকারিক রাজেশ কুমার সিং বলেন, ‘রায়গঞ্জ থানার ভাতুন গ্রাম পঞ্চায়েতের মালদোখন্ড সীমান্তে তাঁদের সংবর্ধনা জানানো হবে। সেখানেই রাত্রি যাপন করার পর শুক্রবার গন্তব্যস্থলের দিকে রওনা দেবেন তাঁরা।’

- Advertisement -

এদিনের অনুষ্ঠান শেষে কেন্দ্রীয় মন্ত্রী দেবশ্রী চৌধুরী জানান, দু’দেশের সীমান্ত সংলগ্ন এলাকায় অবস্থিত বাসিন্দাদের মনোবল বাড়িয়ে তোলার জন্য এই উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। বাংলাদেশের বিজিবির সীমান্তরক্ষীরাও বিএসএফ-এর সঙ্গে হাতে হাত মিলিয়ে এই র‍্যালিকে সাফল্য করতে উদ্যোগী হয়েছেন। বিএসএফের তরফে আয়োজিত এই র‍্যালিতে সহযোগিতার হাত বাড়াতেই এখানে আসা। এদিনের এই অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন ১৭৫ নম্বর ব্যাটেলিয়নের আধিকারিক রাকেশ সিনহা, কমান্ডান্ট গজরাজ সিং, রাজেশ কুমার সিং প্রমুখ।