পাকা রাস্তায় নির্মিত নয়া কালভার্ট ভেঙে পড়ার আশঙ্কা

168

রাঙ্গালিবাজনা: আলিপুরদুয়ার জেলার মাদারিহাট থানার রাঙ্গালিবাজনা থেকে ফালাকাটার পাঁচমাইল যাওয়ার পাকা রাস্তায় দক্ষিণ দেওগাঁওয়ে ২০১৯ সালের মার্চ মাসে নির্মিত কালভার্টটি বেহাল হয়ে পড়ে ওই বছরের জুলাই মাসেই। খবরটি উত্তরবঙ্গ সংবাদে প্রকাশিত হলে জোড়াতাপ্পি দিয়ে সেটি মেরামত করা হয়। ২০২০ সালের জুন মাসে ফের ফাটল ধরে সেটিতে। ফের জোড়াতাপ্পি দিয়ে মেরামত করা হয় কালভার্টটি। কিন্তু চলতি বর্ষায় ফের কালভার্টটি বেহাল হয়ে পড়েছে। দেওগাঁও গ্রাম পঞ্চায়েত কর্তৃপক্ষেরও আশঙ্কা, যে কোনও মুহূর্তেই সেটি ভেঙে পড়তে পারে। ফলে ওই পথে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে যেতে পারে যে কোনও মুহূর্তেই। গ্রাম পঞ্চায়েতের উপপ্রধান রহিফুল আলম ও জেলা পরিষদের স্থানীয় সদস্যা শেফালি বর্মন বিষয়টি নিয়ে দ্রুত পদক্ষেপের আশ্বাস দিয়েছেন। তবে কালভার্টটির নির্মাণকাজের মান নিয়ে প্রশ্ন তুলে ক্ষোভ উগরে দিয়েছেন স্থানীয়রা।

প্রসঙ্গত, কালভার্টটির নীচে কংক্রিটের ঢালাইয়ের নীচের দিকে তৈরি হয়েছে সুড়ঙ্গ। বৃষ্টি হলেই ওই সুড়ঙ্গ দিয়ে জল বয়ে যায়। ফলে, ধীরে ধীরে বসে যাচ্ছে কালভার্টটি। এমনকি কংক্রিটের ঢালাই দিয়ে তৈরি করা খুঁটির ওপরের স্তর থেকে নীচের স্তর বিচ্ছিন্ন হয়ে গিয়েছে। ফাটল ধরেছে বিভিন্ন জায়গায়। ধসে পড়েছে মাটি। এলাকার বাসিন্দাদের অভিযোগ, নিম্নমানের নির্মাণকাজ হওয়ায় কালভার্টটি তৈরি হতে না হতেই বেহাল হয়ে পড়ে। ঠিকাদারকে জানানোর পর জোড়াতাপ্পি দিয়ে মেরামত করা হলেও ফের বেহাল হয়ে পড়েছে। কালভার্টটি সম্পূর্ণভাবে ভেঙে নতুনভাবে তৈরি করা দরকার বলে বক্তব্য স্থানীয়দের।

- Advertisement -

কাজের বরাতপ্রাপ্ত ঠিকাদার গৌর সাহা জানান, নির্মাণকাজ সরকারি শিডিউল মেনেই করা হয়েছে। হয়তো ভিতরে কোনও চোরাস্রোত রয়েছে। বাস্তুকার ও সরকারি আধিকারিকরা কালভার্টটি পরিদর্শনের পর প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ করা হবে। আলিপুরদুয়ার জেলা পরিষদের স্থানীয় সদস্যা শেফালি বর্মন জানান, কালভার্টটি দেখেছি। শীঘ্রই সেটি পরিদর্শনে বাস্তুকার আসবেন। এরপরই প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ করা হবে।