স্নায়ুর যুদ্ধে বাজিমাত শ্রেয়স-অশ্বীনের

শারজা : ছক্কা হাঁকিয়ে ম্যাচ ফিনিশ।

রবিচন্দ্রন অশ্বীনের স্লগ সুইপ বাউন্ডারি পেরোতেই ঝলমলে দিল্লি, আরও অন্ধকারে মুম্বই। শুক্রবার নাইটদের হারের সঙ্গেই প্লেঅফের টিকিট নিশ্চিত হয়ে যায় ঋষভ ব্রিগেডের। রোহিতদের জন্য সেখানে আজ ছিল জিততেই হবে পরিস্থিতি।

- Advertisement -

লো স্কোরিং উত্তেজক ডুয়েলে শেষপর্যন্ত বাজিমাত দিল্লিরই। একসময় অবশ্য ঋষভদের ৯৩/৬ করে দিয়েছিল মুম্বই। তখনও ৩৭ রান প্রয়োজন। কিন্তু আবারও দিল্লির রক্ষাকর্তার ভূমিকায় শ্রেয়স আইয়ার (অপরাজিত ৩৩)। যোগ্য সংগতে অশ্বীনও (অপরাজিত ২০)। চাপের মধ্যে অবিচ্ছিন্ন সপ্তম উইকেটে ৩৯ রানের জুটিতে দলের বৈতরণি পার করে দেন।

শেষটা নাটকীয়ভাবে। অন্তিম ওভারে দরকার ৪ রান। যদিও প্রথম বলেই স্টিভ ও-কে মনে করিয়ে দেওয়া অশ্বীনের স্লগ-সুইপে মারা ছক্কায় ম্যাচে ইতি। ১২ ম্যাচে ১৮ পয়েন্ট, দিল্লির প্রথম দুইয়ে থাকার দাবিও আর জোরদার। মুম্বই সেখানে ১২ ম্যাচে দশেই আটকে। বাকি দুই ম্যাচ জিতলেই হবে না, তাকিয়ে থাকতে হবে অন্য ম্যাচের দিকে।

ব্যাটিং-ব্যর্থতা এদিনও মুম্বইয়ে পথের কাঁটা। মাস্ট উইন ম্যাচ। অথচ সেই তাগিদটাই দেখা গেল না। রোহিত (৭), ডিকক (১৯) রান না পাওয়ার চাপ সামলাতে ব্যর্থ মিডলঅর্ডার। সূর্যকুমার (২৬ বলে ৩৩) অবশেষে রান ফিরলেন। কিন্তু পোলার্ড (৬), হার্দিক (১৭)-দের জোশ এদিন উধাও ম্যাচের সেরা অক্ষর (৩/২১), আবেশদের (৩/১৫) সামনে।

দিল্লিরও শুরুটা ভালো হয়নি। শিখর (৮), পৃথ্বীর (৬) সঙ্গে ডাগআউটে স্টিভেন স্মিথও (৯)। মন্থর পিচে ঝোড়ো ব্যাটিং শুরু করেও শেষরক্ষা হয়নি ঋষভের (২৬)। অক্ষর, হেটমেয়ারদের দ্রুত ফিরিয়ে প্রবলভাবে ম্যাচে ফেরে মুম্বই। শেষপর্যন্ত শ্রেয়স-অশ্বীনের যুগলবন্দিতে রোহিতদের আশাভঙ্গ।