শ্রাদ্ধের পর বাড়ি ফিরলেন করোনায় ‘মৃত’ ব্যক্তি

1140

ব্যারাকপুর: শ্রাদ্ধের অনুষ্ঠান মিটে যাওয়ার পর সন্ধ্যায় বাড়িতে হাজির হলেন মৃত ব্যক্তি! এমনই চাঞ্চল্যকর ঘটনা ঘটেছে উত্তর ২৪ পরগণার খড়দহে। উল্লেখ্য, চলতি মাসের শুরুতে করোনায় আক্রান্ত হয়ে খড়দার বলরাম কোভিড হাসপাতালে ভর্তি হন দুই ব্যক্তি। তাঁদের মধ্যে একজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় তাঁকে ভর্তি করা হয়েছিল বারাসাতের কদম্বাগাছি কোভিড হাসপাতালে। ১৩ নভেম্বর সেখানেই তাঁর মৃত্যু হয়। সেই অনুযায়ী মৃত ব্যক্তির পরিবারের সদস্যরা বিশেষ প্যাকেটে সংরক্ষণ করে রাখা মৃতদেহের শেষকৃত্য করেন। শুক্রবার সকালে ওই ব্যক্তির শ্রাদ্ধ হয়। এরপর সকলকে অবাক করে সন্ধ্যায় সশরীরে নিজের বাড়িতে হাজির হন খাতায় কলমে ‘মৃত’ ব্যক্তি। এতে হতচকিত হয়ে যান উপস্থিত সকলে।

স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, মোহিনীমোহন মুখোপাধ্যায় ও শিবদাস বন্দ্যোপাধ্যায় নামে দুই ব্যক্তিকে একই দিনে খড়দার কোভিড হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছিল। মোহিনীমোহনবাবুর শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে তাঁকে বারাসাত কদম্বাগাছি কোভিড হাসপাতালে পাঠানো হয়। কিন্তু মোহিনীমোহনবাবুর সঙ্গে শিবদাসবাবুর চিকিৎসার সমস্ত নথিপত্র দেওয়া হয় বলে অভিযোগ। সেকারণে মোহিনীমোহনবাবু মারা গেলে খবর যায় শিবদাসবাবুর বাড়িতে। মৃতদেহ বিশেষ প্যাকেটে বন্দি ছিল। তাই শিবদাসবাবুর পরিবারের লোকজন দেহ না দেখেই তাঁর শেষকৃত্য সারেন। আর মোহিনীমোহনবাবুর সুস্থতার খবর পেয়ে পরিবারের সদস্যরা তাঁকে ফিরিয়ে আনতে হাসপাতালে যান। আর সেখানেই ঘটে বিপত্তি। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ পরিবারের সদস্যদের জানায়, ওই ব্যক্তি মোহিনীমোহনবাবু নন।

- Advertisement -

এখবর জানাজানি হতেই চাঞ্চল্য ছড়ায় খড়দায়। বিষয়টি স্বাস্থ্যদপ্তর পর্যন্ত গড়ায়। যদিও বলরাম কোভিড হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ নিজেদের গাফিলতি গা থেকে ঝেড়ে ফেলতে তৎপর হয়েছে। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ রোগী ও তাঁদের পরিবারের সদস্যদের উপর দায় বর্তানোর চেষ্টা করে। বিষয়টি নিয়ে হইচই শুরু হতেই অবশেষে নড়েচড়ে বসে রাজ্যের স্বাস্থ্যদপ্তর। চার সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠনের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে বলে সূত্রের খবর।