কলকাতা, ১৪ জুনঃ স্বাস্থ্য ভবনের নির্দেশিকা, মুখ্যমন্ত্রীর হুঁশিয়ারির পরও অবস্থার বদল হল না নীলরতন সরকার মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে। শুক্রবারও সেখানে ব্যাহত স্বাস্থ্য পরিসেবা। জরুরি বিভাগ খুললেও আউটডোর পরিসেবা চালু হয়নি। এদিনও মুমূর্ষু রোগীদের নিয়ে রোগীর পরিজনদের ছোটাছুটি করতে দেখা গেল। এনআরএসের পাশাপাশি রাজ্যজুড়েও বিভিন্ন হাসপাতালে এই একই চিত্র দেখা গেল।

চাঁচল সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালে সমস্ত চিকিৎসা পরিসেবা চালু থাকলেও ডাক্তাররা মাথায় ব্যান্ডেজ বেঁধে প্রতীকী শাটডাউন করেন। পাশাপাশি চিকিৎসক নিগ্রহ কাণ্ডে কোচবিহারে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হওয়ার পরেও ফের কর্মবিরতি সিদ্ধান্ত নেন ডাক্তাররা। এদিন কোচবিহার সরকারি মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালের বহির্বিভাগে ডাক্তাররা আধঘন্টার জন্য কর্মবিরতি পালন করেন। এমনকি শীঘ্রই পরিস্থিতি স্বাভাবিক না হলে গণইস্তফার হুমকিও দিয়েছেন তাঁরা। কলকাতার এনআরএস হাসপাতাল কাণ্ড নিয়ে প্রতিবাদে উত্তাল বর্ধমান মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালও। এবার প্রতিবাদের ঢেউ আছড়ে পড়ে পূর্ব বর্ধমানের জামালপুর ব্লক হাসপাতালেও। এদিন কালো ব্যাজ পড়ে হাতে প্ল্যাকার্ড, ফেস্টুন নিয়ে পথে নামলেন জামালপুর ব্লক হাসপাতালের চিকিৎসক, নার্স ও স্বাস্থ্যকর্মীরা। রাজ্যজুড়ে এই ঘটনায় বিভিন্ন হাসপাতালে চরম অচলাবস্থার সৃষ্টি হয়েছে। বৃহস্পতিবার এসএসকেএম হাসপাতালে আন্দোলনকারী জুনিয়র ডাক্তারদের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় হুঁশিয়ারি দেন। পাশাপাশি কাজে যোগ দেওয়ার সময়সীমাও নির্দিষ্ট করে দেন তিনি। তবে তাতে পরোয়া না করে কর্মবিরতির সিদ্ধান্তে অটল জুনিয়র ডাক্তাররা।

ফাইল চিত্র