অন্তঃসত্ত্বার পেটে লাথি স্বামীর! নবজাতকের মৃত্যুতে চাঞ্চল্য

87

রায়গঞ্জ: পণের টাকা জুয়া খেলায় নষ্ট করার প্রতিবাদ করতেই গভর্বতী স্ত্রীর গায়ে ফুটন্ত গরম জল ছিটিয়ে তলপেটে লাথি মেরে খুনের চেষ্টার অভিযোগ উঠল স্বামীর বিরুদ্ধে। রায়গঞ্জ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে তাঁকে ভর্তি করা হলে অপরিণত সন্তান প্রসব করেন। যদিও কয়েক মূহুর্ত বাদেই মৃত্য়ু হয় ওই নবজাতকের। অন্যদিকে ঘঠনার পর থেকেই পলাতক গৃহবধূর স্বামী রাজেশ মালাকার। ঘটনাটি মালদহের চাঁচল থানার মকদমপুরের শেরপুরা গ্রামের।

জানা গিয়েছে, জখম গৃহবধূর নাম ভৈরবী মালাকার। উত্তর দিনাজপুরের কালিয়াগঞ্জের বোচাডাঙ্গা গ্রাম পঞ্চায়েতের আটঘোড়ায় বাবার বাড়ি। বর্তমানে তিনি রায়গঞ্জ মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। জখম গৃহবধূর ভাই রঞ্জন মালাকার জানান, প্রায় এক ভছর আগে দিদির বিয়ে হয় চাঁচল থানার মকদমপুরের শেরপুর গ্রামের বাসিন্দা রাজেশ মালাকারের সঙ্গে। বিয়ের সময় পণ বাবদ নগদ এক লক্ষ টাকা এবং একটি টোটো কেনার জন্য আরও এক লক্ষ টাকা দেওয়া হয়। যদিও বিয়ের বছর না ঘুরতেই প্রায় আশি হাজার টাকা জুয়া খেলে নষ্ট করে দেয় বলে অভিযোগ। জখমের ভাই জানান, রবিবার বিকেলে জুয়ার আসরে গিয়ে দিদি সমস্ত ঘটনা জানিয়ে প্রতিবাদ করতেই মারধর করা হয় তাঁকে। অন্যদিকে, ওই গৃহবধূর বাবা পরেশ মালাকারের অভিযোগ, জুয়া খেলার প্রতিবাদ করায় মেয়েকে খুন করার চেষ্টা করা হয়েছিল।

- Advertisement -