কৃষকদের ট্র্যাক্টর মিছিল ঘিরে হিংসার ঘটনায় দায়ের ২২টি মামলা

204

নয়াদিল্লি: কৃষকদের ট্র্যাক্টর মিছিল ঘিরে দিল্লিতে হিংসার ঘটনায় ২২টি মামলা দায়ের হল। হিংসার জেরে এখনও দিল্লির বেশ কিছু জায়গায় ইন্টারনেট পরিষেবা বন্ধ রাখা হয়েছে। সিংঘু এবং টিকরি সীমান্তে মোতায়েন করা হয়েছে ৩০ কোম্পানি সিআরপিএফ। তৈরি রাখা হয়েছে আরও ১৫ কোম্পানি বাহিনীও। বুধবার সকালেও দিল্লি মেট্রোর লালকেল্লা এবং জামা মসজিদ স্টেশন বন্ধ রেখেছে মেট্রো রেল কর্তৃপক্ষ।

মঙ্গলবার কৃষকদের ট্র্যাক্টর মিছিল ঘিরে রণক্ষেত্রের চেহারা নেয় দিল্লি। পুলিশের সঙ্গে দফায় দফায় সংঘর্ষ বাধে। পরিস্থিতি সামলাতে পুলিশকে লাঠিচার্জ, কাঁদানে গ্যাস ব্যবহার করতে হয়। ব্যারিকেড ভাঙার পাশাপাশি সরকারি বাস এবং গাড়িতে আগুন ধরিয়ে দেয় আন্দোলনকারীরা। সংঘর্ষে আহত হয়েছেন ৮৬ জন পুলিশকর্মী। ট্র্যাক্টর চাপা পড়ে মৃত্যু হয় এক কৃষকের। এদিকে, লালকেল্লার ব্যারিকেড ভেঙে ভিতরে ঢুকে পড়েন আন্দোলনকারী কৃষকদের একাংশ। এমনকি, লালকেল্লার গম্বুজে উঠে ধর্মীয় পতাকা তুলে দেওয়া হয়। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যেতে দেখে আন্দোলনকারীদের সীমানায় ফেরার জন্য বারবার আবেদন করতে থাকেন নেতারা। আন্দোলনকারীদের সংযত হওয়ার আবেদন করে সীমানায় ফিরে যেতে বলেন পঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রী ক্যাপ্টেন অমরেন্দ্র সিংও। দিল্লিতে অগ্নিগর্ভ পরিস্থিতি নিয়ে গতকাল সন্ধ্যায় প্রশাসনের শীর্ষ আধিকারিকদের নিয়ে বৈঠকে বসেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শা। পরিস্থিতি সামলাতে অতিরিক্ত বাহিনী মোতায়েন করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

- Advertisement -